header banner

Live From @SheffieldTtimes

LIVE: NDA forms government, Narendra Modi takes oath as Prime Minister for third time
Live
live
live
live
lok sabha election 2024
<br />
<b>Notice</b>:  Undefined variable: headerad in <b>/home/u937603675/domains/sheffieldttimes.com/public_html/components/ads-sidebar.php</b> on line <b>26</b><br />
<br />
<b>Notice</b>:  Trying to get property 'name' of non-object in <b>/home/u937603675/domains/sheffieldttimes.com/public_html/components/ads-sidebar.php</b> on line <b>26</b><br />
Photo Booth
featured
featured
featured
featured

ব্যবসা ও বাণিজ্য

আরো পড়ুন

Split In Godrej : ভাঙন ধরল গোদরেজ পরিবারে

শেফিল্ড টাইম্‌স ডিজিটাল ডেস্ক :  ১২৭ বছর এক ছাদের নীচে থাকা। শেষমেশ সেই পরিবারেই ধরল ভাঙন। দু’টুকরো হয়ে গেল গোদরেজ গোষ্ঠী (Split In Godrej)। সংস্থার তরফে বিবৃতি দিয়ে জানানো হয়েছে, গোদজের গ্রুপের সমস্ত সংস্থাকে নিজেদের মধ্যে দু’টি ভাগে ভাগ করে নেওয়ার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।দরজার তালা থেকে গায়ে মাখার সুগন্ধী সাবান, ফ্রিজ, আলমারি সহ গৃহস্থালির নানা জিনিসপত্র বিক্রি করে গোদরেজ। টাটার মতো গোদরেজও ভারতীয় পরিবার নিয়ন্ত্রিত ব্যবসাগুলির অন্যতম। সংস্থার পথ চলা শুরু হয়েছিল ১৮৯৭ সালে, আর্দেশির গোদরেজের হাত ধরে। {link} ওকালতি পেশা ছেড়ে ব্যবসা শুরু করেন আর্দেশির। পরে গোদরেজ গোষ্ঠীর হাল ধরেন আর্দেশিরের ভাই পিরোজশা ও তাঁর উত্তরসূরিরা। এখন গোদরেজের মালিকানা ছিল পিরোজশার প্রপৌত্র আদি ও নাদির গোদরেজ এবং জামশেদ ও স্মিতা গোদরেজ ক্রিশনার হাতে। গোদরেজ গোষ্ঠীর সংস্থাগুলিকে এই চারজনের মধ্যেই দু’ভাগে বাঁটোয়ারা করে দেওয়া হয়েছে।জানা গিয়েছে, গোদরেজ ইন্ডাস্ট্রিজ গ্রুপের অধীনে থাকা পাঁচটি লিস্টেড সংস্থার রাশ থাকছে আদি ও নাদিরের হাতে। এই সংস্থাগুলি হল গোদরেজ ইন্ডাস্ট্রিজ, গোদরেজ কনজিউমার প্রোডাক্টস, গোদরেজ প্রপার্টিজ, গোদরেজ অ্যাক্রোভেট এবং অ্যাজটেক লাইফসায়েন্সেস। এই সংস্থাগুলির চেয়ারম্যান হিসেবে থাকবেন বছর তিয়াত্তরের নাদির। {link}   এক্সিকিউটিভ ভাইস চেয়ারম্যান আদির ছেলে পিরোজশা। নয়া সিদ্ধান্ত অনুযায়ী, ২০২৬ সালের অগাস্টে তিনিই বসবেন নাদিরের চেয়ারে (Split In Godrej)।গোদরেজ এন্টারপ্রাইজ গ্রুপের অধীনে থাকা আনলিস্টেড সংস্থার নিয়ন্ত্রণ থাকবে জামশিদ গোদরেজের হাতে। গোদরেজ অ্যান্ড বয়েজের অধীনে রয়েছে অনেকগুলি ছোট ছোট সংস্থা। এর মধ্যে বিমান পরিবহণ,এয়ারোস্পেস, প্রতিরক্ষা, আসবাবপত্র, তথ্যপ্রযুক্তি শিল্পও রয়েছে। এই সংস্থাগুলির চেয়ারপার্সন ও ম্যানেজিং ডিরেক্টর হবেন জামশেদ। এক্সিকিউটিভ ডিরেক্টর নিরিকা। মুম্বই শহরের মূল অংশে থাকা ৩ হাজার ৪০০ একর জমির রাশ থাকবে জামশেদ ও স্মিতার হাতে।জামশেদ বলেন, “১৮৯৭ সাল থেকে দেশ গঠনের লক্ষ্যে কাজ করে গিয়েছে গোদরেজ অ্যান্ড বয়েজ। ভবিষ্যৎমুখী এই চুক্তির ফলে আগামী দিনে জটিলতামুক্ত হয়ে নিজেদের লক্ষ্য এগোতে পারব আমরা। নিজেদের শক্তি বৃদ্ধি করতে পারব।” নাদির বলেন, “মূল্যবোধ ও বিশ্বাসে ভর করেই ১৮৯৭ সাল থেকে এতদূর এগিয়েছি আমরা। আরও মনযোগ ও তৎপরতা সহকারে সেই উত্তরাধিকারকে এগিয়ে নিয়ে যাব আমরা (Split In Godrej)।” {ads}

article thumbnail

Norse Atlantic Airways: আন্টার্কটিকার ব্লু আইস রানওয়েতে নামল অতিকায় বিমান, জানুন কী বলছে সংস্থা

Norse Atlantic Airways: এই প্রথম বড় যাত্রিবাহী বিমান অবতরণ করল আন্টার্কটিকার ব্লু আইস রানওয়েতে। নর্স আটলান্টিক এয়ারওয়েজের (Norse Atlantic Airways) বোয়িং ৭৮৭ বিমানটি অবতরণ করেছে প্রায় দু’ মাইল দীর্ঘ ওই রানওয়েতে। এর আগেও একবার একটি যাত্রিবাহী বিমান অবতরণ করেছিল আন্টার্কটিকায়। বছর দুই আগে আন্টার্কটিকার ট্রল এয়ারফিল্ড রানওয়েতে অবতরণ করেছিল ছোট ওই বিমানটি। এবার অবতরণ করল বড় বিমান। গত বুধবার সেটি ট্রল এয়ারফিল্ড রানওয়ে ছোঁয়। বিমানটি ৩৩০জন যাত্রী পরিবহণ করতে পারে। গত সোমবার বিমানটি অসলো থেকে আন্টার্কটিকার উদ্দেশে রওনা দেয়। দক্ষিণ আফ্রিকার কেপটাউনে কিছুক্ষণের জন্য থামে। বুধবার অবতরণ করে ব্লু আইস রানওয়েতে। রানওয়েটি চওড়ায় ৬০ মিটার।  {link} নর্স আটলান্টিক এয়ারওয়েজের (Norse Atlantic Airways) তরফে ব্লু আইস রানওয়েতে অতিকায় যাত্রিবাহী বিমানের অবতরণকে মাইলফলক আখ্যা দেওয়া হয়েছে। এই এয়ারওয়েজের সিইও বজর্ন টোরে লারসেন বলেন, “আমাদের এই সাফল্যের নেপথ্যে সংস্থার প্রতিটি কর্মীর অবদান রয়েছে। বিশেষভাবে উল্লেখ করতে হয় বোয়িংয়ের পাইলট ও অন্য ক্রু-দের।” তিনি বলেন, “এটি আমাদের গোটা টিমের পক্ষে একই সঙ্গে সম্মানের ও উত্তেজনার। কারণ আমরাই প্রথম ব্লু আইসে বড় যাত্রিবাহী বিমান অবতরণ করাতে পেরেছি। আবিষ্কারের স্পিরিট নিয়ে আমরা এ কাজ করেছি। আমরা এজন্য গর্বিত। এটি আমাদের উন্নত প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত এবং দক্ষ পাইলট ও ক্রু-দের প্রকৃত পরীক্ষার জীবন্ত দলিল।” {link} বিবৃতিতে বলা হয়েছে, অদূর ভবিষ্যতে আরও পণ্য যাত্রিবাহী বিমান অবতরণ করানোর পরিকল্পনা করা হয়েছে। জানা গিয়েছে, বিমানটিতে একজন নরওয়ের পোলার ইনসস্টিটিউটের বিজ্ঞানী সহ মোট ৪৫ জন যাত্রী ছিলেন। ছিল গবেষণার জন্য প্রয়োজনীয় ১২ টন সরঞ্জামও। ঐতিহাসিক এই ঘটনার প্রমাণ স্বরূপ সংস্থার (Norse Atlantic Airways) তরফে একটি ভিডিও পোস্ট করা হয়েছে সোশ্যাল মিডিয়ায়। {ads}

article thumbnail

Nobel Prize: গবেষণা পথ দেখিয়েছিল কোভিডের প্রতিষেধক তৈরিতে, চিনে নিন দুই নোবেলজয়ী বিজ্ঞানিকে

Nobel Price: তাঁদের গবেষণা সাহায্য করেছে কোভিডের এমআরএনএ প্রতিষেধক তৈরিতে। তার জেরে এ যাত্রায় রক্ষা পেয়েছেন বহু মানুষ। যুগান্তকারী এই গবেষণার জন্যই এবার নোবেল পুরস্কার পেলেন কাতালিন কারিকো ও ড্রু ওয়াইম্যান। কাতালিন কারিকো হাঙ্গেরির সেজড বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক। তিনি পেনসিলভানিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের পেরেলম্যান স্কুল অফ মেডিসিনের সহযোগী অধ্যাপকও। আর ড্রু ওয়াইসম্যান ভাকসিন গবেষণার অধ্যাপক ও পেন ইনস্টিটিউট ফর আরএনএ ইনোভেশনের ডিরেক্টর। এই টিকা নিয়ে পেনসিলভেনিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ে যৌথভাবে গবেষণা চালান কাতালিয়া কারিকো এবং ড্রু ওয়াইসম্যান। {link} সোমবার নোবেল কমিটির তরফে চিকিৎসা বিজ্ঞানে পুরস্কার প্রাপকদের নাম ঘোষণা করা হয়। বলা হয়, আমাদের ইমিউন সিস্টেমের সঙ্গে এমআরএনএ কীভাবে সাড়া দেয়, সে সম্পর্কে আমাদের ধারণাকে মৌলিকভাবে পরিবর্তন করেছে তাঁদের যুগান্তকারী অনুসন্ধান। বিজয়ীরা আধুনিক সময়ে মানব স্বাস্থ্যের জন্য সব চেয়ে বড় হুমকির মধ্যে একটি টিকা তৈরিতে অভূতপূর্ব অবদান রেখেছেন। {link} নোবেল অ্যাসেম্বলির সেক্রেটারি টমাস পার্লম্যান পুরস্কার ঘোষণা করে বলেন, পুরস্কার ঘোষণার আগে যখন আমি তাঁদের সঙ্গে যোগাযোগ করি, তখন দুই বিজ্ঞানীই পুরস্কারপ্রাপ্তির খবরে অভিভূত হন। গত বছর মেডিসিনে নোবেল পুরস্কার পেয়েছিলেন সুইডিশ বিজ্ঞানী সভান্তে পাবো। ১৯৮২ সালে চিকিৎসা বিজ্ঞানে নোবেল পুরস্কার পেয়েছিলেন তাঁরা বাবা সুনে বার্গস্ট্রমও।  {ads}

article thumbnail

6G Network: স্বীকৃতি পেল ভারতে 6G টেলিকমিউনিকেশন যোগাযোগ ব্যবস্থা গড়ে তোলার দৃষ্টিভঙ্গী

6G Network: উন্নত প্রযুক্তির সুবিধা নিতে হবে বলে বিভিন্ন সময় মন্তব্য করেছেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। তিনি নিজেও টেক-স্যাভি। ৬জি টেলিকমিউনিকেশন পরিষেবা গড়ে তোলার বিষয়েও তিনি যে বিশেষ আগ্রহী, তাও বিভিন্ন সময় প্রকাশ করেছেন প্রধানমন্ত্রী। তাঁর এই দৃষ্টিভঙ্গীকে মান্যতা দিল রাষ্ট্রসংঘের অধীনস্ত সংস্থা আইটিইউ। এই সংস্থার স্টাডি গ্রুপের বৈঠকে ভারতের ৬জি টেলিকমিউনিকেশন যোগাযোগ ব্যবস্থা গড়ে তোলার দৃষ্টিভঙ্গীকে স্বীকৃতি দেওয়া হয়েছে। আইটিইউয়ের স্টাডি গ্রুপের এই স্বীকৃতিতে ৬জি প্রযুক্তি স্থাপনের খরচ কমাতে এবং ভারতকে ৬জি মানের সংজ্ঞা নির্ধারণে নেতৃত্ব দেওয়ার সুযোগ করে দেবে। {link} তামাম বিশ্বের মোবাইল টেলিকমিউনিকেশনের মান নির্ধারণ করে থাকে আইটিইউ। প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি যে ৬জি ভিশন নথি প্রকাশ করেছেন, তাতে ৬জি প্রযুক্তির বাস্তবায়ন সাশ্রয়ী, টেকসই এবং সর্বজনীন হওয়া উচিত বলে প্রস্তাব করা হয়েছে। স্টাডি গ্রুপের আগের বৈঠকে ভারতীয় প্রতিনিধি দল আইএমটি২০৩০ কাঠামোয় ৬জি সর্বজনীন সংযোগকে ব্যবহারের দৃশ্য হিসেবে অন্তর্ভুক্ত করেছে। এই প্রস্তাবটি গৃহীত হয়েছে রাষ্ট্রসংঘের অধীনস্থ সংস্থা আইটিইউয়ের স্টাডি গ্রুপের বৈঠকে। ভারতের এই স্বীকৃতি কেবল একটি প্রযুক্তিগত সাফল্য নয়, কূটনৈতিক সাফল্যও। খালিস্তানপন্থী জঙ্গি হরদীপ সিং নিজ্জর খুনে ভারতের দিকে অভিযোগের আঙুল তুলেছে কানাডার জাস্টিন ট্রুডো সরকার। যদিও এ ব্যাপারে এখনও পর্যন্ত কাউকে পাশে পায়নি ট্রুডোর দেশ। এহেন আবহে ভারতের এই স্বীকৃতির গুরুত্ব যে অপরিসীম, তা মানছেন আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিশেষজ্ঞদের একাংশও।  {link} ৬জি প্রযুক্তি সূচনা করবে নয়া যুগের। এই প্রযুক্তির ব্যবহার শুরু হলে সুবিধা মিলবে হাইস্পিডের ইন্টারনেটের। কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা এবং অন্যান্য প্রযুক্তির জন্যও তৈরি হবে নয়া সুযোগ। ডিজিটাল অর্থনীতিতে ভারতের ভূমিকা বৃদ্ধিতেও সাহায্য করবে এই প্রযুক্তি। আইটিইউয়ের স্টাডি গ্রুপের বৈঠকে ভারতের এই প্রস্তাব গৃহীত হওয়ায় মোদির দেশ যে ক্রমেই প্রযুক্তিগত আলোচনায় উল্লেখযোগ্য স্থান দখল করছে, তা বলাই বাহুল্য। আইটিইউয়ের এনজিএন বিষয়ক বিশেষজ্ঞ গ্রুপের সদস্য সত্য গুপ্তা বলেন, স্বীকৃত প্রস্তাবগুলি প্রযুক্তি কীভাবে বিবর্তন হবে, তা নির্ধারণ করে। ভারতের ৬জি প্রস্তাব গ্রহণ দেশের ভিশনকে একটি বিশ্বব্যাপী স্তরে নিয়ে এসেছে এবং ৬জি মান গঠনে অংশ নেওয়ার জন্য দেশকে সুযোগ দেয়।  {ads}

article thumbnail

Bajaj Pulsar N150: দেশের বাজারে 1.17 লক্ষ টাকা দামে এই নতুন বাইক লঞ্চ করল বাজাজ, জানুন বিস্তারিত

Bajaj Pulsar N150: দেশজুড়ে আর মাত্র কয়েকদিনের মধ্যেই শুরু হতে চলেছে উৎসবের মরশুম। স্বাভাবিকভাবেই এই সময় অটোমোবাইল সংস্থাগুলির পণ্যের বিক্রি বাড়ে অনেকটাই। বহু ক্রেতার কাছেই এই সময়টি নিজেদের পছন্দের বাইক কিংবা গাড়ি ক্রয় করার একটি আদর্শ সময়। সেই বিষয়টির উপর লক্ষ্য রেখেই দেশের দুই-চাকার গাড়ির বাজারে ক্রমাগত একের পর এক নতুন বাইক লঞ্চ করে চলেছে প্রস্তুতকারী সংস্থাগুলি। এবার সেই তালিকায় যুক্ত হল বাজাজের নাম (Bajaj)। দেশের এই জনপ্রিয় গাড়ি প্রস্তুতকারী সংস্থাটি মঙ্গলবার ভারতীয় গাড়ির বাজারে তাদের বিখ্যাত বাইকের সিরিজ পালসারের একটি নতুন মডেল পালসার N150 (Pulsar N150) লঞ্চ করেছে।  {link} একটি সংবাদ সংস্থা সূত্রে খবর, পালসারের এই অত্যাধুনিক মডেলটি ভারতীয় গাড়ির বাজারে 1.17 লক্ষ টাকা দামে লঞ্চ করা হয়েছে। একইসঙ্গে বাইকটিতে যুক্ত করা হয়েছে একাধিক অত্যাধুনিক বৈশিষ্ট্য। প্রসঙ্গত, বাজাজের পক্ষ থেকে বিগত 18 মাসের মধ্যে পালসার সিরিজের বেশ কয়েকটি নতুন বাইক লঞ্চ করা হয়েছে, যার মধ্যে Pulsar N160 অবিশ্বাস্য সাফল্য লাভ করতে সক্ষম হয়েছে। এছাড়াও এই তালিকায় রয়েছে N250-র মতো মডেলও। এই বাইকটিও ক্রেতাদের একটি বড় অংশের মনে যায়গা করে নিতে সক্ষম হবে বলে ধারণা করছেন ওয়াকিবহাল মহলের একাংশ। কি কি অত্যাধুনিক ফিচার্স রয়েছে এই বাইকটিতে, দেখে নিন এক ঝলকে-   2023 পালসার N150 ডিজাইন- এই নতুন বাইকটি চমকপ্রদ এবং অত্যাধুনিক ডিজাইনিং-এর সঙ্গে নির্মাণ করা হয়েছে। বাইকটির ট্যাঙ্কটি মসৃণ এবং আড়ম্বরপূর্ণ ডিজাইনে নির্মাণ করা হয়েছে, যা বাইকটিকে একটি নজরকাড়া প্রোফাইল তৈরি করে। এছাড়াও বাইকটিতে একটি স্পোর্টিয়ার আন্ডারবেলি এক্সজস্ট প্রদান করা হয়েছে। এক্সজস্টটি উচ্চতর RPM-এ গর্জন করে, যার ফলে এটি যুব প্রজন্মের জন্য অত্যন্ত আকর্ষণীয় একটি মডেল হতে চলেছে। সর্বোপরি, বাইকটিতে ফ্লোটিং বডি প্যানেল যেমন- বেলি প্যান, ফ্রন্ট ফেয়ারিং এবং ফ্রন্ট ইমোসিং প্রোফাইল প্রদান করা হয়েছে।  {link} 2023 বাজাজ পালসার N150: পারফরম্যান্স নতুন এই বাইকের মডেলের ইঞ্জিনটি 14.5 ps পিক পাওয়া এবং 13.5 Nm টর্ক উৎপন্ন করতে সক্ষম। এই মোটরসাইকেলটির সাহায্যে বাইক চালকেরা যে কোন পরিস্থিতিতে রোমাঞ্চকর পারফরম্যান্স এবং অনায়াসে দ্রুতগতির বাইক চালানোর অভিজ্ঞতা প্রদান করতে সক্ষম। এছাড়াও চালকের নিরাপত্তার উপর এই বাইকটিতে বিশেষ জোর দেওয়া হয়েছে। চালকের নিরাপত্তার ক্ষেত্রে একটি একক চ্যানেল এবিএস উচ্চতর ব্রেকিং কন্ট্রোল এবং ট্র্যাকশন অফার করে। যে সুবিধাটি নিশ্চিত করে, চালকেরা সহজেই যে কোন কঠিন রাস্তায় বাইক নিয়ন্ত্রণ করতে পারেন।   বিশেষজ্ঞদের একাংশের মতে এই বাইকটি আসন্ন সময়ে যুব প্রজন্মের কাছ একটি অত্যন্ত আকর্ষণীয় বাইক হয়ে উঠতে চলেছে। এছাড়াও বাড়তে থাকা বাজার মূল্যের মাঝে অত্যন্ত কম দামে একাধিক বৈশিষ্ট্যর সঙ্গে নির্মাণ করা এই বাইকটি অন্যান্য বাইকের মাঝে অবশ্যই একটি নেতিবাচক অবস্থানে থাকতে চলেছে।   {ads}

article thumbnail

LIC: বিপুল সাফল্য এই সংস্থার, চেয়ারম্যান সিদ্ধার্থ মোহান্তি 1,831.09 টাকার চেক দিলেন অর্থমন্ত্রীকে

শেফিল্ড টাইমস ডিজিটাল ডেস্ক: বিরোধীদের মুখে ঝামা ঘষে দিল এলআইসি। কেন্দ্রীয় এই সংস্থাকে মোদি সরকার বিক্রি করে দিচ্ছে বলে নানা সময় সরব হয়েছেন বিরোধীরা। সস্তা জনপ্রিয়তায় ভর করে ভোট-বৈতরণী পার হতে লাভজনক এই সংস্থাকেই ধুঁকছে বলে দেগেও দিয়েছেন বিরোধীরা। এহেন এলআইসি লাভের কড়ির একটা অংশ তুলে দিলেন কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী নির্মলা সীতারামণের হাতে। এলআইসির চেয়ারম্যান সিদ্ধার্থ মোহান্তি বৃহস্পতিবার ওই চেক তুলে দেন। যার অর্থমূল্য, ১,৮৩১.০৯ কোটি টাকা। {link} চলতি বছর ৬৭ পূর্ণ করল এলআইসি। ১৯৫৬ সালে মাত্র ৫ কোটি টাকা নিয়ে যাত্রা শুরু করেছিল এই সংস্থা। ২০২৩ সালের ৩১ মার্চ এলআইসির সম্পত্তির পরিমাণ ৪৫.৫০ লক্ষ কোটি টাকা। এর সঙ্গে ৪০.৮১ লাখ কোটি টাকার লাইফ ফান্ডও রয়েছে। দু দশক আগে ইন্স্যুরেন্স সেক্টর খোলে এলআইসি। তার পর থেকে ইন্স্যুরেন্সের সিংহভাগ বাজার এলআইসির পকেটে। এখনও দেশের বেশিরভাগ বিনিয়োগকারী বিনিয়োগের ক্ষেত্রে ভরসা করেন এলআইসির ওপর। {link} লাভের কড়ি সরকারকে দেওয়ার পাশাপাশি এদিন এলআইসি দু শতাংশ শেয়ার বিক্রি করেছে সান ফার্মাকে। এজন্য এলআইসির হাতে এসেছে ৪,৬৯৯ কোটি টাকা।  এলআইসির বাড়বাড়ন্তে খুশি কেন্দ্র। অর্থমন্ত্রকের তরফে জানানো হয়েছে, এলআইসি এজেন্টদের গ্র্যাচুইটির সীমা তিন লাখ থেকে বাড়িয়ে পাঁচ লাখ টাকা করা হয়েছে। এলআইসি কর্মীদের ৩০ শতাংশ হারে ফ্যামিলি পেনশন দেওয়ার কথাও ঘোষণা করা হয়েছে। পুনরায় নিযুক্ত হওয়া এলআইসি এজেন্টরা রিনিউয়াল কমিশনের সুবিধাও পাবেন বলে জানিয়েছে অর্থমন্ত্রক। সংসদে নানা সময় এলআইসির প্রশংসা শোনা গিয়েছে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির মুখে। তিনি নিজেও টাকা রেখেছেন এলআইসিতে। ২০১৯ সালের হলফনামা অনুযায়ী, প্রধানমন্ত্রী বিনিয়োগ করেছেন দুটি পলিসিতে। ২০১০ সালে তিনি একক প্রিমিয়াম বাবদ দিয়েছিলেন ৪৯,৬৬৫ টাকা। ২০১৩ সালে অন্য একটি পলিসিতে একক প্রিমিয়াম বাবদ তিনি দিয়েছেন ১,৪০,৬৮২ টাকা।  {ads}

article thumbnail

পুজো সংখ্যা ১৪২৮

আরো পড়ুন

বছর দুয়েক আগেও এ বাড়িতে দুর্গাপুজোয় পাত পড়ত কয়েক হাজার ভক্তের

পুজোর যে আনন্দ তাতে অনেকটাই প্রভাব বিস্তার করেছে করোনার মহামারী। মনের মধ্যে কাজ করছে আতঙ্ক, ভয় যে ছবিটা দেখা গিয়েছিল শেষ বছরেই। অতিমারী করোনা কেড়েছিল পুজোর জৌলুস। কিন্তু এবার পরিস্থিতির অনেকটাই উন্নতি হয়েছে। তাই এবারও ঘটা করে পুজো হবে তমলুকের নন্দকুমারের বনেদি বাড়িতে। বছর দুয়েক আগেও এ বাড়িতে পাত পড়ত কয়েক হাজার ভক্তের। করোনার জন্য তা বন্ধ থাকছে এবছরও। যদিও অন্নভোগই নিবেদন করা হবে দেবীকে। {link}  পূর্ব মেদিনীপুরের বর্ধিষ্ণু অঞ্চল তমলুক। স্বাধীনতা সংগ্রামের সঙ্গে ওতোপ্রোতভাবে জড়িয়ে এই জনপদের নাম। এই তমলুকেরই ব্যবত্তারহাট এলাকার ভট্টাচার্য ও চক্রবর্তী পরিবার গত চারশো বছর ধরে নিষ্ঠা সহকারে পুজো করে আসছেন দেবী দুর্গার। বছরের পর বছর সুচারুভাবে পুজো হয়ে এলেও, করোনা অতিমারীর কারণে তা যেন ছন্নছাড়া হয়ে গিয়েছে এই দু বছর। তমলুকের রাজা তাম্বধ্বজের ব্যবস্থাপক ছিলেন এখানকার ভট্টাচার্য ও চক্রবর্তী পরিবারের পূর্বপুরুষরা। সেই থেকে এলাকার নাম হয় ব্যবত্তারহাট। এই ব্যবত্তা পরিবারের পূর্ব পুরুষ ছিলেন সার্থক রাম। একবার সার্থক রামের মা দুর্গাপুজোর অঞ্জলি দিতে গিয়েছিলেন পাশের একটি গ্রামে। সেখানে তাঁকে অপমান করে তাড়িয়ে দেওয়া হয়েছিল। মায়ের অপমান সহ্য করতে না পেরে বাড়িতেই দুর্গাপুজোর আয়োজন করেন তিনি। সেই থেকেই নিরবচ্ছিন্নভাবে দেবীর আরাধনা হয়ে আসছে এ বাড়িতে। কালক্রমে সেই পুজোই হয়ে আসছে দুই পরিবারের পারিবারিক পুজো। সুপ্রাচীন প্রথা মেনে আজও দেবীকে নিবেদন করা হয় নিরামিষ অন্নভোগ। {link} এ বাড়িতে দেবীকে নিজের হাতে তৈরি বড়ি দিয়ে ভোগ দেন মহিলারা। ষষ্ঠী এবং সপ্তমীতে দেবীকে নিবেদন করা হয় এক মণ ছ সের চালের ভোগ। সঙ্গে থাকে নানা পদ। অষ্টমীতে ভোগের চালের পরিমাণ বেড়ে হয় এক মণ ৮ সের চাল। আর নবমীতে চালের পরিমাণ হয় এক মণ ন সের। রীতি মনে এখনও হয় সন্ধিপুজো। সেখানেও দেবীকে নিবেদন করা হয় খিঁচুড়ি ভোগ। দশমীতে হয় দধিকর্মা। সিঁদুর খেলার পর বিসর্জন হয় দেবীর। এ বাড়িতে হাজার খানেক সলতে পোড়ানো হয়।  জমিদার আমলের দুর্গামণ্ডপ ভেঙে তৈরি হয়েছে নতুন মণ্ডপ। এতদিন দেবীকে ভোগ নিবেদন করে প্রসাদ খাওয়ানো হত দর্শানর্থীদের। করোনার কারণে গত বছর থেকে তা বন্ধ। অন্য সমস্ত পুজোগুলির মতো বদল আনা হয়েছে পুষ্পাঞ্জলি দেওয়ার রীতিতেও। আগে ফুল-বেলপাতা দিয়ে অঞ্জলি দেওয়া গেলেও, অতিমারী পরিস্থিতিতে হয়েছে শুধুই করজোড়ে প্রার্থনা। কিন্তু যা কমেনি তা হল পুজোর এই দিনগুলিতে ঘরে আসা মায়ের জন্য ভক্তি শ্রদ্ধা ও ভালোবাসা। অপেক্ষা আর মাত্র কয়েকটা দিনের… তারপরেই আবার বছর ঘুরে মা আসবেন তমলুকের নন্দকুমারের বাড়িতে।  {ads}

article thumbnail

আজও রীতি মেনে দেবী দুর্গার সঙ্গে সঙ্গে এ বাড়িতে পুজো হয় মহামারীর

একসময় দেবীর আশির্বাদে মুক্তি মিলেছিল মহামারীর প্রকোপ থেকে। তাই আজও রীতি মেনে দেবী দুর্গার সঙ্গে সঙ্গে এ বাড়িতে পুজো হয় মহামারীরও। তিনশো বছরেরও বেশি সময় আগে যখন পুজো শুরু হয়, তখনও পুজো হত মহামারীর। প্রজাদের কল্যাণে প্রতিদিন পোড়ানো হয় দেড় কুইন্টাল খই। পশ্চিম মেদিনীপুরের দাঁতনের ঘোলাই গ্রাম পঞ্চায়েতের আঙ্গুয়া গ্রামের দাস মহাপাত্র বাড়ির এটাই রীতি। এখনও এবাড়িতে পুজোর দিনগুলিতে গাওয়া হয় চণ্ডীমঙ্গল, ভারতগান। তিনশো বছর আগেও মহামারী হত। তখন চিকিৎসা ব্যবস্থা ছিল বেশ অনুন্নত। রোগের প্রকোপে উজায় হয়ে যেত গাঁয়ের পর গাঁ। তাই প্রজাদের মঙ্গলের জন্য মহামারীর পুজো শুরু হয় জমিদার দাস মহাপাত্রদের বাড়িতে। এবারও করোনা অতিমারীর হাত থেকে বিশ্বকে মুক্ত করতে প্রার্থনা করবেন এই পরিবারের সদস্যরা।  {link} কটকের খোরদার থেকে এ রাজ্যের মুর্শিদাবাদের উদ্দেশ্যে আসছিলেন জনৈক বিরিঞ্চি মোহান্তি। দাঁতনের ঘোলাইয়ের কাছে সংজ্ঞাহীন হয়ে পড়েন তিনি। স্থানীয় এক ব্রাহ্মণ জমিদার তাঁকে উদ্ধার করেন। সুস্থ হয়ে জমিদারের সেরেস্তায় কাজ করতে শুরু করেন বিরিঞ্চি।  {link} বয়সকালে কাশী যাবেন মনস্থ করেন জমিদার। জমিদারি লিখে দিতে চান বিরিঞ্চিকে। বিশ্বস্ত কর্মচারী বিরিঞ্চি জমিদারকে প্রস্তাব দেন অর্ধেক সম্পত্তি জমিদারের মেয়েকে দিয়ে বাকিটা তাঁর নামে লিখে দেওয়ার। সেই মতো অর্ধেক জমিদারি নিয়ে ঘোলাইয়ের পলাশিয়ায় থেকে যান বিরিঞ্চি। {ads} বিরিঞ্চির দুই ছেলের মধ্যে ভাগ হয় জমিদার। ছোট ছেলের জমিদারিতেই শ্রীবৃদ্ধি ঘটে। এই ভাগের উত্তরসূরিদের মধ্যে রূপনারায়ণ দাস মহাপাত্র দুর্গাপুজো শুরু করেন। এর কয়েক পুরুষ আগে মোহান্তিরা ইংরেজদের কাছ থেকে উপাধি পেয়ে দাস মহাপাত্র হয়ে গিয়েছেন। এঁদের কেউ কেউ রাজার দেওয়া উপাধি চৌধুরীও ব্যবহার করেন। প্রতিপদ থেকে পুজো শুরু হয় এ বাড়িতে। চলে দশমী পর্যন্ত। প্রতিদিনই পুজো হয় মহামারীর। পোড়ানো হয় খই। দেশবাসীর মঙ্গলের জন্য। এবারেও সেই নীতি মেনেই হবে পুজো। দেবীর আশির্বাদে করোনার প্রকোপ থেকে মুক্তি মিলুক পৃথিবীবাসীর এই প্রার্থনাই মায়ের কাছে করছেন সকলে।  {ads}

article thumbnail

উত্তর দিনাজপুরের সেনবাড়ির দুর্গাপুজোয় আজও পুজোর দিনগুলিতে মন্দিরে প্রবেশ নিষিদ্ধ মহিলাদের

বাংলার কাছে সবচেয়ে উৎসব মুখর দিনগুলিতে যে ঠাকুরের পূজা সম্পন্ন হয়, তিনি নিজে মাতৃরূপে বাঙালির ঘরে আসেন। কিন্তু সেই মায়ের পুজোতেই পুজোর দিনগুলোতে মন্দিরে প্রবেশ নিষিদ্ধ মহিলাদের। সংসারের এহেন নিয়ম দেখলে অবাক হওয়াটাই স্বাভাবিক। এবং এই রীতিই চলেও আসছে বহু বছর ধরে।  উত্তর দিনাজপুরের রায়গঞ্জ শহরের সেনবাড়ির দুর্গাপুজোয় এটাই রীতি। মন্দিরের বাইরে দাঁড়িয়ে দেবী দুর্গার দর্শন করেন এই পরিবারের মহিলা সদস্যরা। জমিদারি এখন আর নেই। তাই সেই জাঁকও আর নেই। তবে পুজো হয় নিয়ম নিষ্ঠা মেনেই। {link} রায়গঞ্জ শহরের সুদর্শনপুরেই বাস সেনেদের। এক সময় এঁদের বাস ছিল বাংলাদেশের যশোরে। পুজোর সূচনা করেন সুরেন্দ্রনাথ সেন। পরে বাংলাদেশের পাট চুকিয়ে সেন পরিবার চলে আসেন রায়গঞ্জে, সুদর্শনপুরে। এখানে এই পুজো পড়ল ৭৬ বছরে। বাংলাদেশে যে রীতি মেনে পুজো হত, এখানেও তেমনটাই হয়। বৈষ্ণব নয়, এখানে পুজো হয় শাক্ত মতে। সপ্তমী থেকে নবমী প্রতিদিনই বলি হয়। এ বাড়ির পুজোয় ছেলেরা অংশ নিতে পারলেও, মেয়েরা পারেন না। তবে মন্দিরের চাতালে বসে দেবদর্শন করতে পারেন।  {ads} কর্মসূত্রে বর্তমানে সেন পরিবারের সদস্যরা দেশ-বিদেশে ছড়িয়ে-ছিটিয়ে থাকেন। তবে পুজোর সময় সবাই একত্রিত হন। পরিবারের সদস্যদের দাবি, তিনশো বছর আগে পুজো শুরুর সময় থেকে এ পর্যন্ত একবারও পুজো বন্ধ হয়নি। পুজো চলাকালীন কোনও সদস্যের মৃত্যু হলেও, পুজো বন্ধ হয়নি। এ বাড়িতে দেবীকে অন্নভোগ নিবেদন করা হয় না। ফলমূল, লুচি-মিষ্টি দিয়েই পুজো হয়। একচালার প্রতিমায় পুজো হয়। এখানে দেবীর মহিষাসুরমর্দিনী রূপের পুজো হয়। দেবীর সঙ্গে লক্ষ্মী, সরস্বতী, কার্তিক, গণেশ সবাই থাকেন। এসব প্রত্যক্ষ দেবতা ছাড়াও আরও অনেক দেবতার পুজো হয়। নিয়ম মেনে হয় সন্ধিপুজোও। তবে কুমারি পুজো হয় না এ বাড়িতে। জমিদার বাড়ির পুজো দেখতে এখনও ভিড় করেন দূর-দুরান্তের মানুষ।  {link} স্থানীয় বহু মানুষের এই মন্দিরে পুজোর সময় মহিলাদের প্রবেশ করা নিষিদ্ধ থাকলেও এর বিরুদ্ধে সেইভাবে আজ পর্যন্ত কেউ সেইভাবে প্রতিবাদ জানাতে আসেননি। বহু বছর ধরে চলতে আসা নিয়মের ছক ভাঙার চেষ্টাও করেননি কেউ। মহিলারাও মন্দিরের বাইরে থেকেই মায়ের আশির্বাদ নিয়ে চলে যান। হয়ত মায়ের ওপর আস্থা রয়েছে বিপুল, সেই কারনেই চেনা ছক ভাঙতে চান না তারা…  {ads}  

article thumbnail

বৈঁচির দাঁ পরিবারের মা দুর্গা লোকমুখে ছেলে ধরা দুর্গা নামে খ্যাত

দশ হাতের দেবী দুর্গাই শুধু নয়, বাংলার মাটিতে দেবী পূজিতা হন অভয়া রূপেও। কিন্তু অবাক করা কথা কোথায় জানেন? এই গ্রামে দেবী দুর্গা পরিচিত ছেলেধরা দুর্গা নামে। একইভাবে দেবী দুর্গা নন, বৈঁচির দাঁ পরিবারে পুজো হয় দেবী অভয়ার। মা দুর্গারই এক রূপ অভয়া। দুর্গা যেমন মহিষাসুরকে বধ করেন, অভয়া রূপ তেমন নয়। তাঁর হাতে ধরা এক বালক। লোকমুখে এ দুর্গা ছেলে ধরা দুর্গা নামেই খ্যাত। {link} জনৈক ব্যবসায়ী বিনোদ দাঁ এই পুজোর সূচনা করেন। শোনা যায়, চাঁদ সওদাগরের আমল থেকেই তাঁর পূর্ব পুরুষ ব্যবসা করে আসছেন। বিনোদবাবুর আমলে শ্রীবৃদ্ধি হয় ব্যবসার। তিনিই শুরু করেন অভয়া দুর্গার পুজো।  {ads} কেন এ রূপের পুজো হয়? বাণিজ্যে যাওয়ার পথে চাঁদ সওদাগর দেবীর কমলেকামিনী রূপ দেখেন। রাজাকে সে রূপ দেখাতে না পারায় তাঁকে বন্দি করা হয়। বাবার বন্দিদশা ঘুঁচাতে তাঁর পুত্র শ্রীমন্ত সওদাগর রওনা দেন। তিনিও দেবীর ওই রূপই দেখেন। তিনিও রাজাকে দেবীর ওই অপরূপ মূর্তির কথা বলেন। রাজা দেবীর ওই মূর্তি দর্শন করতে চান। শ্রীমন্ত তাঁকে তা দেখাতে না পারায়, বণিকপুত্রকে জলে ফেলে দেন রাজা। তখন অভয়া রূপে দেবী উদ্ধার করেন শ্রীমন্তকে। বাবার বন্দিদশা ঘুঁচিয়ে শ্রীমন্ত দেবীর অভয়া রূপেরই পুজো করেন। দাঁ বাড়িতে সেই রূপেই বিগত ২০০ বছর ধরে পূজিত হয়ে আসছেন দেবী অভয়া। {link} একচালার প্রতিমা। দেবীর সঙ্গে অসুর নেই। তবে লক্ষ্মী, সরস্বতী, কার্তিক, গণেশ রয়েছেন। বিনোদবাবুর আমলেই একবার পুজো বন্ধ হয়ে যাওয়ার উপক্রম হয়েছিল। তখন দেবী স্বপ্নাদেশ দেন, থোড় ও কাশীর চিনি দিয়েই পুজো কর। সেই থেকেই থোড় ও কাশীর চিনি দিয়ে পুজো হয়। দাঁ পরিবারের প্রায় সব সদস্যই কর্মসূত্রে ছড়িয়ে ছিটিয়ে থাকেন। পুজোর সময় সবাই একত্রিত হন। পুজোর সময় আনন্দে মুখরিত হয়ে হয়ে ওঠে এই বিখ্যাত পরিবারের বাড়ি, দূর দূর থেকে মানুষ দর্শন করতে আসেন মাতৃমূর্তি। কিন্তু পুজো মিটলেই আবার শূন্যতা তার দাপট দেখাতে শুরু করে। পুজো শেষে দেবীর কাঠামো পড়ে থাকা খাঁ খাঁ দালানবাড়িতে। {ads}  

article thumbnail

এ বাড়িতে দেবী দুর্গার সঙ্গে পুজো পান আরও একুশ দেবতা

কেউ যদি প্রশ্ন করে বাংলা ও বাঙালির সর্ববৃহৎ উৎসব কোনটি, তাহলে এককথায় উত্তর আসবে একটিই, দুর্গাপুজো। দুর্গাপুজো মানের অনেক আনন্দ ভালোলাগা ও আনন্দের সংমিশ্রণ। রাত জেগে ঠাকুর দেখা বড়ো বড়ো প্যান্ডেল হপিং, থিম পুজোর রমরমা। কিন্তু এসবের মাঝেই আমরা বাংলার একটা পুরোনো সংস্কৃতিকে প্রায় ভুলতে বসেছি। সেটা বাংলার সমস্ত ঐতিহ্যের ধারক ও বাহক সমস্ত বহুকাল থেকে চলে আসতে থাকা বনোদি ও রাজবাড়ির পুজোগুলি। এহেন এক পুজোরই আশ্চর্য উপাখ্যান আজ রইল শেফিল্ড টাইমসের রাজবাড়ির পুজোর আরও একটি নতুন পর্বে।  উল্লেখযোগ্যভাবে এ বাড়িতে দেবী দুর্গার সঙ্গে পুজো পান আরও একুশ দেবতা। এঁরা প্রত্যেকেই হাজির জমিদার বাড়িতে। সেজন্য মুর্শিদাবাদের ধুলিয়ানের জমিদার বাড়ির পুজো ‘বাইশ পুতুলের পুজো’ নামে খ্যাত। ইদানিং ধুলিয়ানে দুর্গাপুজো হলেও, পুজোর সূচনা হয়েছিল মালদহের দেওনাপুরে। এ পরিবারের প্রয়াত সদস্য রাঘবেন্দ্র রায় ছিলেন জমিদার। গঙ্গার ভাঙন ও বন্যার জেরে দুর্ভোগ পোহাতে হত পরিবারের সদস্যদের। বাধ্য হয়ে পাততাড়ি গুটিয়ে ১৮২৫ সালে ধুলিয়ানে চলে আসেন জমিদার পরিবার। নির্মাণ করা হয় দালানকোঠা। পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে সঙ্গে সপরিবারে আসেন দেবী দুর্গাও। সেই থেকে পুজো হচ্ছে ধুলিয়ানে।  পুজো শুরু হয় কৃষ্ণা নবমীতে। বিসর্জন হয় দশমীতে। অন্যত্র যেমন সন্তান-সন্ততি নিয়ে পুজো পান দেবী দুর্গা, এখানেও তেমনি। তবে এ বাড়িতে পুজো পান আরও ষোলোটি দেবদেবীর মূর্তি। এঁদের মধ্যে সবার ওপরে রয়েছেন মহাদেব। তাঁর দুপাশে থাকেন নন্দী ও ভৃঙ্গি। তাঁরও ওপরে থাকেন গঙ্গা। দেবীর বামদিকে থাকেন বিজয়া এবং নরসিংহ। দেবীর সঙ্গেই থাকেন রাম, লক্ষ্ণণ। থাকেন বিষবাহন। আরও কিছু প্রতিমাও থাকে। প্রাচীন রীতি মেনে প্রতিমার কাজ শুরু হয় রথের দিন।  পুজো হয় সূচনা লগ্নের সময়কার নিয়ম মেনে। বিসর্জনের দিন ঢাক বাজান পুরুষেরা। সিঁদুর খেলায় মাতেন মহিলারা। কাঁধে করে দেবী মূর্তি নিয়ে গিয়ে আজও বিসর্জন দেওয়া হয় গঙ্গায়। প্রাচীন ঐতিহ্য মেনে এখনও হয় বাইচ প্রতিযোগিতার। এক সময় বাইশ পুতুলের পুজো দেখতে আসতেন দূর-দুরান্তের মানুষ। এখন আর আসেন না। তবে এলাকাবাসী একবার হলেও দর্শন করে যান জমিদার বাড়ির মা-কে। দেবী মা-ও প্রত্যক্ষ করেন জমিদারদের ‘প্রজা’দের, হয়তবা তার আশির্বাদও লাভ করেন কেউ কেউ।  সারা বাংলা জুড়ে এহেন অসংখ্য অবাক করা বনোদি ও রাজবাড়ির পুজোর উপাখ্যান রয়েছে। যার বেশ কয়েকটি বা বলা চলে অধিকাংশই জানা এবং হয়ত বেশ কিছু অজানাও রয়েছে। মায়ের আসতে আর মাত্র কয়েকদিনের অপেক্ষা....   {ads}

article thumbnail

হারিয়ে খোঁজার পথে(ধারাবাহিক)- নিখিল কুমার চক্রবর্তী{পর্ব-১০}

ঘরে ঢুকে নিশাকে দেখে প্রাথমিকভাবে একটু অবাক হলেও পর মুহূর্তেই স্বাভাবিক হয়ে গেলেন অনিমেষ দত্ত। একমুখ হাসি ছড়িয়ে বললেন --নমস্কার ম্যাডাম। আপনিই তাহলে সুমিতের হাসপাতালে না যাওয়ার কারণ। ওদিকে হাসপাতালে হই হই হচ্ছে। ডাক্তার গায়েব! নিশা কিছু বলল না। শুধু হাত জোর করে নমস্কার করল। সুমিত বলল --অনিমেষদা বসুন। আমি আর এক রাউন্ড কফি নিয়ে আসি। নিশা ক্লান্ত থাকলে বারেবারে কফি খায়।  সুমিত কিচেনে ঢুকে গেল। অনিমেষ দত্ত নিশাকে বললেন --কিছু একটা রিলেশন যে আছে তা সুমিতের আগ্রহ দেখে বুঝেছিলাম। কিন্তু একেবারে আরামবাগে চলে আসার মতো রিলেশন বুঝতে পারিনি। সুমিত দেখলাম আপনার অভ্যাস সম্বন্ধেও ওয়াকিবহাল। তা, আপনি কেমন আছেন এখন? --মোটামুটি আছি।  --ভাল থাকতেই হবে। অতীতকে আঁকড়ে থাকলে ভাল থাকা যায় না ম্যাডাম। অতীত থেকে শিক্ষা নিলে তবেই ভাল থাকা যায়। আপনি চাকরি ছেড়ে দিলে জায়গাটা থেকে দূরে থাকতে পারবেন, কিন্তু নিজের থেকে দূরে থাকবেন কি করে?  নিশা এবারে সরাসরি অনিমেষ দত্তর মুখের দিকে তাকাল। খুব ধীরে ধীরে বলল --যা ঘটেছে আপনি সবই জানেন। এরপরেও কি ছাত্রছাত্রীরা আমাকে সম্মান দিতে পারবে? --সম্মান কেউ কাউকে দেয় না ম্যাডাম। নিজেকে অর্জন করতে হয়। কলেজে আপনার সুনাম ভাল পড়ানোর জন্য। ছাত্রছাত্রীরা আপনাকে ভালবাসে আপনার ব্যবহারের জন্য। আপনার জীবনে কি ঘটছে সেটা সম্পূর্ণ আলাদা বিষয়। জীবন আর জীবিকা এক জিনিষ নয় ম্যাডাম। {link} একটা ট্রেতে তিনটে কফিমগ নিয়ে সুমিত এসে বসল। ওদেরকে একটা করে কফিমগ হাতে দিয়ে নিজেও একটা নিয়ে নিশার পাশে বড় সোফা সেটটায় বসল। অনিমেষ দত্ত ততক্ষণে সিঙ্গল সেটটায় বসে পড়েছেন। কফিতে চুমুক দিয়ে সুমিত বলল --অনিমেষদা, আপনাকে বলতে পারিনি যে নিশাকে আমি চিনি। একপাড়াতে আমরা বড় হয়েছি, একসাথে পড়াশোনা করেছি। ও একচুয়ালি একেবারে ছোট্টবেলা থেকে আমার সাথে ছিল। পাস্ট টেন্স ইউজ কেন করছি তা আপনি ভাল করেই জানেন। তবে ওর কাছে আমি ঋণী। ও মোহনকে বিয়ে করে আমাকে ছেড়ে চলে না গেলে আজকের সুমিতের জন্ম হত না। ওর কথা অনেকবার আপনাকে বলার ইচ্ছে হয়েছে, কিন্তু হাসির খোরাক হবার ভয়ে বলিনি। সুমিতকে থামিয়ে অনিমেষ দত্ত বললেন --এতদিনে দাদাকে এই চিনলে ভায়া? সবার জীবনেই কিছু না কিছু দুর্বল জায়গা থাকে। আমি মনে করি সেসব কথা সবাইকে না জানানই ভাল। সবাই সমানভাবে নিতে পারে না। তবে নির্ভরযোগ্য কারোর সাথে শেয়ার করতে পারলে ভাল হয়। জানলাম, তুমি আমাকে নির্ভরযোগ্য ভাবতে পার নি। সুমিত উঠে অনিমেষ দত্তর কাছে গিয়ে তার হাত দুটো ধরে বলল --আপনি এরকম বললে আমার অপরাধের শেষ থাকবে না। বুঝতে পারছি, আপনাকে না বলে ভুল করেছি। প্লিজ ক্ষমা করে দিন। অনিমেষ দত্ত সুমিতকে ধরে নিয়ে এসে সোফায় বসিয়ে দিয়ে বললেন --ওসব নিয়ে মন খারাপ করে লাভ নেই। যা বুঝলাম নিশা ম্যাডাম তোমার ছোটবেলার সঙ্গী। তোমাকে ছেড়ে মোহনকে বিয়ে করে চলে যাওয়াতে তোমার কষ্ট হয়েছিল। তুমি নিজের খোলনলচে বদলে ফেলেছ। মানে, তুমি নিশাকে খুব ভালোবাস। তা, ওকে কোনদিন বলেছ ভায়া যে, তুমি ওকে ভালবাসো? --সেটাও কি মুখে বলতে হয় দাদা? ও বুঝতে পারে নি কেন? --বলতে হয় ভায়া। অনেক কথা যেমন বলতে নেই, তেমনি অনেক কথা সময়ে বলতে হয়। ভালবাসার লোককেও বলতে হয় "আমি তোমাকে ভালবাসি।" "শক্তি" বলে একটা হিন্দী মুভি থেকে আমি এটা শিখেছিলাম। শেষ দৃশ্যে পুলিশ বাবা স্মাগলার ছেলেকে গুলি করার পর ছুটে গিয়ে তাকে কোলে তুলে নিয়ে বলছে,"তুই আমাকে ছেড়ে যাস না। তোকে ছেড়ে আমি বাঁচব না।" উত্তরে ছেলে বলছে, "বাবা, এতদিন একথা তুমি বল নি কেন? তাহলে তো আমি স্মাগলার হতাম না।" ছেলে ভাবত বাবা তাকে ভালবাসে না। তাই বলছি ভায়া, শুধু ম্যাডামকে দোষ দিয়ে তো লাভ নেই। দোষ তোমারও আছে। ভাষায় ভালবাসার প্রকাশটা খুব জরুরী। {ads} নিশা দুজনের কথোপকথন শুনে যাচ্ছে। অনিমেষ দত্তকে নতুন রূপে দেখছে এখানে। কলেজে এডমিনিস্ট্রেটর হিসাবে তার রূপ দেখেছে। এখানে তার রূপ এক অভিভাবকের। সত্যিই সে যেন সুমিতের দাদা। সে যদি এরকম এক দাদা পেত তাহলে হয়ত তার জীবনটা এভাবে তছনছ হত না। একটা গভীর দীর্ঘশ্বাস হালকাভাবে নিশার বুকের ভেতর থেকে বেরিয়ে এল। অনিমেষ দত্ত যাই বলুন না কেন সুমিতের থেকে তার অপরাধ অনেক বেশি। সুমিতের ডেডিকেশনে তার প্রতি ভালবাসা যথেষ্টই প্রকট ছিল। সেই বুঝতে পারেনি। বোধহয় এত ভালবাসার যোগ্য সে নয়। নিজের দোষে সে নিজের জীবন শুধু নষ্ট করেনি সুমিতের জীবনটাও শুকনো করে দিয়েছে। নিজের অজান্তেই তার দুচোখ ছাপিয়ে জলের ধারা নেমে এল। {link} অনিমেষ দত্ত পোড় খাওয়া লোক। জীবনে অনেক বাঁক, অনেক তরঙ্গের মুখোমুখি হয়েছেন। নিজের জীবনে এমন না হলেও অনেকটা একই রকম অবস্থার সম্মুখীন হয়েছেন। কলেজ জীবনের প্রেম সংসারে বাস্তবায়িত হয়েছিল।  ডাক্তারি পড়তে কলকাতায় গিয়েছিলেন অনিমেষ দত্ত। উচ্চবিত্ত পরিবারের ছেলে হলেও পড়াশোনায় কোন অবহেলা ছিল না তাঁর। কলকাতার কলেজে ডাক্তারি পড়ার সুযোগ পেয়েছিলেন। তবে হস্টেলে না থেকে মেডিকেল কলেজের কাছাকাছি ফ্ল্যাট ভাড়া নিয়ে থাকতেন। ওঁর যখন ফাইনাল ইয়ার তখন রুনিরা ঐ বিল্ডিঙের অন্য ফ্ল্যাটে আসে। রুনিরও তখন গ্র্যাজুয়েশনের ফাইনাল ইয়ার। ওরা আগে দমদমে থাকত। ওর বাবা মা দুজনেই করপোরেট সেক্টরের এমপ্লয়ি। ওদের পুরো পরিবারটাই অন্যরকম জীবনযাপনে অভ্যস্ত ছিল। যে যাপনে আবার অনিমেষ দত্তরা অভ্যস্ত নয়। দমদমের পরিবেশ বসবাসের উপযোগী না হওয়ায় ওরা নাকি এখানে উঠে আসে। তখন ওসব নিয়ে কিছু ভাবেই নি অনিমেষ দত্ত। এখন মনে হয় ভাবা উচিত ছিল। তবে মফস্বলের ছেলেকে কি কারণে কলকাতার রুনি মুখার্জী ভালবেসেছিল তা আজও অনিমেষ দত্তর কাছে অজানা। আদৌ ভালবেসেছিল কি? সেটাও তো অজানা এখনও। ভালবাসলে বিয়ের ছ মাসের মধ্যে ঝামেলা শুরু হয়ে গেল কেন?  {ads}

article thumbnail

সাহিত্যের পাতা

আরো পড়ুন

উপলব্ধিঃ ফাস্ট ফুড- নিখিল কুমার চক্রবর্তী

উপলব্ধি  (ফাস্ট ফুড)  খুব বেশিদিন আগেকার কথা নয়। তখনও ফাস্ট ফুডের ব্যবসা শিল্পের পর্যায়ে পৌঁছায় নি। নানা রকম পোষাকী নামে বিভূষিত হয়ে আলুর তৈরি আইটেম জাতে ওঠেনি। হাজারটা ব্যবসাদার হাজার রকম নামে একই পদ কে বিভিন্ন ভঙ্গীমায় পরিবেশনও করত না। ফাস্ট ফুড বলতে চপ, সিঙ্গারা, বেগুনী, কুমড়ী, ফুলুড়িকেই বোঝাত। সন্ধ্যেবেলায় বর্ষাবাদলের মেঘমল্লার বেজে উঠলে সরষের তেলে (সাদা তেল তখন বাঙালি চোখে বা চেখে দেখে নি) জিরে শুকনো লঙ্কা ভাজা আর চপ দিয়ে মুড়ি চটকে মেখে খবরের কাগজের ওপর ঢেলে দেওয়া হত। তার চারধারে বারো ইয়ার। ঐ মুড়ির সাথে সিঙ্গারা ভেঙে ভেঙে খাওয়া হত সবাই মিলে। সবাই একসাথে খাবলা মারার চেষ্টা করত। সব খাওয়ার পর বাইরের "চাঁপাকল” থেকে এক মগ জল এনে ঢক ঢক করে খেয়ে ঢেকুর তুলত বাঙালি। তারপর চিনিগোলা এক ভাঁড় চা। অবশ্যম্ভাবীভাবে দশ মিনিট পর থেকে গলায় মোবিল ছেটকাতো। রাতের খাওয়া শিকেয় উঠত। কোন কোন রসিক সুজন সন্ধ্যে হলেই এই ধরণের ফাস্ট ফুডের জন্য ছটফট করে মরে যেত। অবশ্য শুধু ফাস্ট ফুড কে দোষ দিয়ে লাভ নেই। সে তো সহযোগী। আসল ছটফটানি রঙিন তরলের বোতলের জন্য। বাড়ির লোক যাতে জানতে না পারে তার জন্য সাপের কামড়ের ভয়কে তুচ্ছজ্ঞান করে সন্ধ্যেবেলায় গ্রামের বাঁশতলায় কত যে মেহ্ফিল বসত! তখন মুঠোফোনের চল হয় নি। হুট করলেই বারো ইয়ার এক জায়গায় ঠেক মারার জন্য নির্দিষ্ট সময়ে আসার এত্তেলা পেত না। তবুও কী এক অমোঘ ইশারায় সবাই ঠিকঠাক চলে আসত। বাতাস দূতের কাজ করে গন্ধ পৌঁছে দিত ইয়ারমহলে। এসব দিন এখন অতীত। এখন শহরের ফুটপাতে মানুষ চলে না। পাত পেড়ে কাটলেট, রোল, মোগলাই, বিরিয়ানি খায়। অযুত নিযুত রেস্তোরাঁয় কত রকমের আইটেম! "স্টার্টার", "ডেজার্ট", "মেন কোর্স" ইত্যাদি নামে পকেট খালি করার এবং পেট ভর্তি করার কত রকম কারসাজি! এসবের একবারে প্রথমের দিকে আমার মত এক গাঁয়ের লোক "চিলি চিকেন" খেয়ে বলেছিল, "আরে, এ তো মুরগীর টক"। তা শুনে যে তাকে খাওয়াতে নিয়ে গিয়েছিল তার হড়কে পড়ে যাওয়ার মত অবস্থা। ছি ছি, এমনভাবে কেউ প্রেস্টিজ পাংচার করে! "শিক কাবাব" খেয়ে বলেছিল, "আরে দূর, আমার গ্রামের বন্ধু তামর হেমব্রোম তো তাদের বাড়িতে নিয়ে গিয়ে হাঁসের মাংস পুড়িয়ে এমন করেই খাইয়েছিল।" বলা বাহুল্য হবে, এরপরে আর কোনদিন সেই বন্ধু এমন কোন সঙ্গী নিয়ে রেস্তোরাঁয় যাওয়ার সাহস দেখায় নি। এখন তো আরও সহজ হয়ে গেছে সবকিছু। মুঠোফোনের দৌলতে মুঠোয় এসে গেছে দুনিয়া। "অনলাইন" এ যা খুশী অর্ডার করে আনানো যায়। একটা ক্লিকের অপেক্ষা। খুব ভাল। বাড়িতে অতিথি এসেছে (যদিও খুব কম লোকই এখন চায় যে বাড়িতে অতিথি আসুক। আত্মসুখসর্বস্ব পরিবার নিজেদের নিয়ে ব্যস্ত থাকতেই বেশি পছন্দ করে), অনলাইনে অর্ডার দাও। পরনিন্দা, পরচর্চা শেষ হওয়ার আগেই খাবার এসে হাজির। কে আর কষ্ট করে দুপুরের মেনুতে বাঙালির প্রিয় পেঁয়াজ রসুন দিয়ে কলমি শাক ভাজা, পোস্তবড়া (মহার্ঘ এখন), পুকুরে জাল ফেলে ধরা টাটকা মাছের ঝোল বা হাঁসখোপ থেকে সদ্য বের করে আনা ডিমের ঝোল দিয়ে ভাতার থালা সামনে ধরে আপ্যায়ন করে? হাঁসখোপের ডিম আর পুকুরের টাটকা মাছ শহরে না থাকলেও বাঙালির অতিথি আপ্যায়নে ব্যাগ ওপচানো সব্জির বাজার আর গোটা বড় একটা কাৎলার কানকোর ভেতর দিয়ে খড় ঢুকিয়ে বেঁধে অন্য হাতে তা ঝুলিয়ে আনার সুনাম ছিল। বাড়ির গিন্নীরা তখন বড় আঁশবঁটির ওপর থেবড়ে বসে সেই মাছ কাটত। বড় বড় পিস করত। এখনকার মত বাজারে মাছ কিনে অন্য কাউকে এক্সট্রা দশ টাকা দিয়ে পঁচিশ গ্রামের এক একটা পিস করিয়ে আনতে হত না। বাজার থেকে ফেরার পথে সবাই জানত বাড়িতে অথিথি এসেছে। কেউ কেউ মজা করে বলত, "বাড়িতে বড়কুটুম (শালা বা সম্বন্ধী) এসেছে না কি?" অতিথি অপ্যায়নে ফাস্ট ফুড তখন এত সুনাম কুড়োয় নি। এতে সুবিধা কি হয় নি? নিশ্চয়ই হয়েছে। এই বেগযুগে আবেগহীন মানুষের হাতে "সময় কোথায় সময় নষ্ট করবার"? স্বামী স্ত্রী আর একমাত্র সন্তানকে নিয়ে তৈরি পরমাণুপরিবারে সবাই ব্যস্ত। অতএব, পেটের ক্ষতি হলেও উপায় নেই। অনলাইনই জীবনকে অফলাইন হওয়া থেকে বাঁচিয়ে রেখেছে। মুশকিল অন্য জায়গায়। এই ধরণের ব্যবস্থা প্রচ্ছন্নভাবে নিস্পৃহ মানসিকতার জন্ম দেয়। শারীরিক অসুস্থতা ডেকে আনে। যে যখন খুশী এলেও অসুবিধা নেই। মুঠোফোন তো আছে! চটকদার মনোহারি ফাস্ট ফুড আনিয়ে নিলেই হবে। অতএব নিস্পৃহ থাকো। এই মানসিকতা আস্তে আস্তে সব ক্ষেত্রে ছড়িয়ে পড়লে বিপদ। সিরিয়াসনেসের অভাব দেখা দিতে পারে। আর চটকদারি, মশলাদার এই সব খাবার যে শরীরের পক্ষে খারাপ তা বলার অপেক্ষা রাখে না। তা হলে কি এসব খাবার পরিহার করতে হবে? কখনই না। তা হলে তো পিছিয়ে পড়তে হয়। যুগের সাথে তাল মেলানো যায় না। সুতরাং, খাওয়ার সীমা জানতে হবে। সব পরিস্থিতির মত এক্ষেত্রেও থামতে জানতে হবে। বাঙালিকে ব্যালান্স করা শিখতে হবে। {ads}

article thumbnail

উপলব্ধিঃ সংস্কৃতি- নিখিল কুমার চক্রবর্তী

সংস্কৃতি শব্দটা খুব গোলমেলে। কখন যে কোন দিকে টার্ণ নেয় বোঝা মুশকিল। মানে, কখন যে কোনটা সংস্কৃতি আর কোনটা অপসংস্কৃতি তা বোঝা খুবই দুরূহ ব্যাপার। আমার বাড়ির সংস্কৃতি অন্য কোন বাড়ির সংস্কৃতি নাও হতে পারে। আবার শহরে যেটা সংস্কৃতি সেটাই হয়ত প্রত্যন্ত গ্রামে অসভ্যতার চূড়ান্ত। উল্টোটাও হতে পারে। ছোটবেলায় দিদির শ্বশুর বাড়ি গেলে এক ভদ্রলোককে দেখলেই ভয়ে পালাতাম। তাকে তখন অসভ্য, বদমাশ লোক বলে মনে হত। অদ্ভূত অদ্ভূত বাংলা শব্দের ইংরাজি প্রতিশব্দ বলতে বলে আনন্দ পেতেন। জটিল সব বাক্যের ইংরাজি অনুবাদ জানতে চাইতেন। একবার জিজ্ঞাসা করেছিলেন, "মুরগীর ঝুঁটি ইংরাজি কি?" আর একবার বলেছিলন, "গরুর বাঁটের ইংরাজি জানো?" ভদ্রলোকের এই ব্যবহারটা মোটেই সেই গ্রামের সংস্কৃতি হতে পারে না। এটা মানুষকে হেয় প্রতিপন্ন করে নিজেকে জাহির করার ব্যক্তিগত প্রয়াস। ভদ্রলোকের এই অদ্ভূত মানসিকতার জন্য দিদির শ্বশুর বাড়ির গ্রামের সংস্কৃতিকেই খারাপ বলে মনে হত তখন। কিন্তু আসলে তা নিশ্চয়ই নয়। আমাদের স্কুলবেলায় একটা বিষয় নিয়ে খুব তর্কবিতর্ক হয়েছিল। একজন শিল্পীর গানকে কোন মন্ত্রী "অপসংস্কৃতি" আখ্যা দিয়েছিলেন। তা নিয়ে বাংলা জুড়ে হৈ হৈ। বাংলারই এক স্বনামধন্য ব্যক্তি সে প্রসঙ্গে বলেছিলেন, "যাঁর টেস্ট শহীদ মিনারের মাথায় লাল রঙ লাগানো, তিনি আবার সংস্কৃতির কি বুঝবেন?" আমি দুটো ব্যাপারই বুঝিনি। কেউ একজন কারোর গানকে অপসংস্কৃতি বলতেই পারেন। এটা তাঁর ব্যক্তিগত মতামত। তাতে তো আর সত্যি সত্যিই তা সংস্কৃতির বাউন্ডারির বাইরে চলে যায় না। তা যদি যেত তাহলে সেই শিল্পী এখনও এত জনপ্রিয় থাকতেন না। আবার শহীদ মিনারের মাথায় কি রঙ লাগানো হল তা দিয়েও নিশ্চয়ই ভারপ্রাপ্ত মন্ত্রীর সংস্কৃতিমনস্কতার পরিচয় পাওয়া যায় না। একটা বাংলা সিনেমা ( আমার মতে সেটা সিনেমা পদবাচ্য নয়। বড়জোর যাত্রাপালা বলা যেতে পারে) তখন মাসের পর মাস "হাউসফুল" হয়ে রমরমিয়ে চলেছিল। আমার "পেয়ারের বন্ধু" সাধনকে বলেছিলাম, "এমন নিম্নমানের বই এত দিন ধরে চলে কি করে বল তো?" সাধন যা বলেছিল তা এখনও সমান প্রাসঙ্গিক। বলেছিল, "তুই বললেই তো হবে না! এত লোকে দেখছে যখন, তখন বইটা ডেমোক্রেটিক্যালি হিট।" অর্থাৎ  অপসংস্কৃতি নয়। তাহলে ব্যাপারটা কি দাঁড়াল? সংস্কৃতি ব্যাপারটাই কি আপেক্ষিক? হয়ত তাই। আমাদের দেশে নারী পুরুষের প্রিম্যারিট্যাল শারীরিক সম্পর্ক সংস্কৃতির আওতায় পড়ে না। আবার পৃথিবীর অনেক দেশেই এটার গ্রহনযোগ্যতা আছে। আমাদের দেশে বড়দের নাম ধরে ডাকা শোভনীয় নয় (যদিও আস্তে আস্তে তা শুরু হয়েছে)। অথচ পৃথিবীর অনেক দেশে ওটাই সংস্কৃতি। গ্রামে গঞ্জে এখন বাড়ির ছেলে মেয়েরা রাত ন'টার পর বাড়ির বাইরে থাকলে বড়দের কাছে অবধারিতভাবে ধমক খাবে। শহরে নগরে রাত ন'টার পর সন্ধ্যে শুরু হয়। আমাদের সিনেমা আর বিদেশি সিনেমা নিয়ে একজনের কাছে একটা কথা শুনেছিলাম। আমাদের সিনেমায় সারাদিনের কাজকর্ম সেরে স্বামী স্ত্রী রাতে খাওয়া দাওয়া করে যখন ঘরের দরজা বন্ধ করে ঘুমোতে যায় তখন বই শেষ হয়। বিদেশের বই ওখান থেকেই শুরু হয়। সব চেয়ে মজার ব্যাপার, আমরা এখনও সিনেমা, বই ইত্যাদি বলতে অভ্যস্ত। আমাদের পরবর্তী প্রজন্ম কিন্তু "মুভি" বলতে ভালবাসে। আমরা এখনও ঘনিষ্ঠ কারোর শরীর খারাপের খবর পেলে ছুটে গিয়ে তার পাশে দাঁড়ানোর চেষ্টা করি। অনেকে ফোনেই কর্তব্য সারে। বা, সোশ্যাল মিডিয়ায় একটা জব্বর স্ট্যাটাস! তাহলে? আমরা কি সংস্কৃতির রূপ বদলানো প্রত্যক্ষ করছি না? পোস্ট কার্ড, ইনল্যান্ড লেটার, এনভেলাপ দিয়ে আমাদের যোগাযোগ ব্যবস্থা শুরু হয়ে, ল্যান্ড ফোন - মোবাইল ফোন হয়ে এখন নেট - হোয়াটসঅ্যাপ ইত্যাদিতে পরিবর্তিত হয়নি কি? সংস্কৃতির হাত যত লম্বা হবে মানে, যত প্রযুক্তিনির্ভর হবে তত পুরনো ধ্যান ধারণা পাল্টাবে এতে কোন সন্দেহ নেই। তবে একটা কথা মনে রাখতে হবে। প্রযুক্তির কুফল নিয়ে গড়ে ওঠা সংস্কৃতি কোনদিন সমাজজীবনকে সমৃদ্ধ করতে পারে না। যোগাযোগ ব্যবস্থা প্রযুক্তিনির্ভর হয়ে যাওয়ার কারণে আজকে বৃদ্ধাশ্রমের প্রয়োজনীয়তা যদি বাড়ে তাহলে এই সংস্কৃতির নিশ্চয়ই কোন গুরুত্ব থাকতে পারে না। মূল্যবোধের ওপরে গড়ে ওঠা সংস্কৃতির মূল্য আগে ছিল, এখনও আছে। কোন দেশ, কোন সমাজ, কোন পরিবারের নিজস্ব আদর্শ, মূল্যবোধ, সংস্কৃতি থাকবে এটাই স্বাভাবিক। সেটা সময়ের সাথে তাল মিলিয়ে পরিমার্জিত এবং পরিশীলিত হবে এটাও স্বাভাবিক। অস্বাভাবিক তখনই, যখন এটার গতিমুখ পাল্টে গিয়ে সম্পূর্ণ বিপরীত প্রতিক্রিয়ায় নেগেটিভ মানসিকতার জন্ম দিয়ে চলে গতিহীনভাবে। {ads}

article thumbnail

উপলব্ধিঃ মার্কেটিং- নিখিল কুমার চক্রবর্তী

উপলব্ধি  (মার্কেটিং) আমাদের বড়বেলায় (বুড়োবেলায় নয়) মার্কেটিং বলতে এম বি এ কোর্সের একটা শাখাকে বুঝতাম। জেনেছিলাম, বাজার সংক্রান্ত পড়াশোনা হয় সেই শাখায়। মনোপলি মার্কেট, কম্পিটিটিভ মার্কেট ইত্যাদি ইত্যাদি। সেই সব মার্কেটে দ্রব্যের মূল্য কিভাবে ঠিক করা হবে, কখন দ্রব্য বাজারে নিয়ে যেতে হবে -- এই সব ব্যাপার না কি পড়ানো হয় সে শাখায়! আরো অনেক কিছু নিশ্চয়ই পড়ানো হয়। তবে সে সবে গুরুত্ব দিতাম না। মার্কেটিং ব্যাপারটা নিয়ে এত গুরুত্ব দেওয়ার বিষয় সেটা ছিল না তখন। পাকাবেলায় এসে নিজে কস্টিং পড়তে গিয়ে জানলাম মার্কেটিং এত সহজ বিষয় নয়। মার্কেটিং ম্যানেজমেন্টকে তখন একটু অন্য চোখে দেখতে আরম্ভ করলাম। আরো বিশদে জানার চেষ্টা করলাম। আসলে তখনও ঠিক বুঝে উঠতে পারি নি যে মার্কেটিং ম্যানেজমেন্টটাই বর্তমান সমাজে আসল ম্যানেজমেন্ট। সেটা বুঝতে বুঝতেই মাথায় চকচকে টাক। যাই হোক, জানতে জানতেই কস্টিং কমপ্লিট হয়ে গেল। সবাই ভাবল আমি মার্কেটিং ব্যাপারটায় খুব দক্ষ হয়ে গেছি। কিন্তু আমি তো নিজেকে চিনি। বাজারের থলি হাতে বেরুলেই বুঝতে পারি, মার্কেটিংয়ের "ম" ও জানি না। পুঁই শাক কিনলে যে সাথে কুমড়ো কিনতে হয় তা মাথায় থাকে না। শুক্তোর বাজার করতে গৃহিণী ঠেলে পাঠালে হয় উচ্ছে না হয় কাঁচা কলা আনতে ভুলে যাবই। দামের কথা না ই বা বললাম। সব্জি বিক্রেতা আমার থেকে ভাল মার্কেটিং বোঝে। আমাকে দেখেই বলে উঠে, "আসুন দাদা, কত দিন পরে এলেন। শরীর ভাল তো? বাড়ির সবাই ভাল তো?" আমি গদগদ হয়ে যাই। কি ভাল লোক! আমার কত খেয়াল রাখে! সে আবার বলে, "পটল এক কিলো দিচ্ছি দাদা। হাজিগড়ের মাঠের টাটকা পটল। আপনি তো জানেন আমরা নিজেরাই চাষ করি। সত্তর টাকা কিলো বেচছি। আপনি ষাট করে দেবেন।" খুব খুশী হয়ে পটল কিনে বাড়িতে ফিরে গৃহিণীকে সব বলতেই খাঁটি সরষের তেলের ঝাঁঝ বেরিয়ে আসে। "ঐ ছেলেটার বাড়ি হাজিগড়ে? নিজেরা চাষ করে? তোমাকে ঢপ দিল আর তুমি মেনে নিলে? ওর বাড়ি তো এই বর্ধমানেই। মেহেদিবাগানে। বাপের জন্মে কোনদিন চাষের মাঠে পা দিয়েছে?" এর পর দাম শুনে আরো উগ্র ঝাঁঝ। "সে কী গো? আমাদের বাড়ির সামনে দিয়ে যাওয়া গলা কাটা সব্জির ভ্যানবালাগুলোও তো অত দাম নেয় না। পঞ্চাশ টাকা কিলো নেয়। হায় হায়! কি একটা গাড়োলের সাথে যে বাবা আমার বিয়ে দিয়েছে!" এর পরে স্বভাবতই স্থান ত্যাগ করা উচিত। এবং আমিও "সাকসেসফুল রিট্রিট" করি। কি যে হয় আমার! পরের বার বাজার গিয়ে আবার তার কাছে যাই। আবার সব্জি কিনি। আবার ঠকি। "ল অব ডিমিনিশিং রিটার্ণ" কাজই করে না। যখন একটু আধটু ছেড়ে একটু বেশিই লিখতে শুরু করলাম তখন "সাহিত্যের গৃহিণীপনা" বলে একটা কথা শুনেছিলাম। অর্থাৎ শুধু লিখলেই হবে না, তা গ্রন্থাকারে বা অন্য যেভাবে হোক পাঠকের হাতে যথোপযুক্ত(?) মূল্যে তুলে দেওয়ার ব্যবস্থা করতে হবে। এটা না পারলে যত ভালই লেখা হোক, কেউ পাবলিশ করবে না। নিজের জীবনে প্রত্যক্ষ্য করছি এটা। তা, এটা কি মার্কেটিং নয়? মার্কেটিং হল সেই প্রজাতির প্রাণী যা সিচুয়েশন অনুযায়ী নিজের রূপ ও স্বভাব পাল্টাতে পারে। এখন ব্যাপারটা আরো ঘোরালো হয়ে গেছে। কর্পোরেট হসপিটাল, মিডিয়া হাউস, কর্পোরেট শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান, এন জি ও প্রভৃতি সবাই একটা করে মার্কেটিং উইং রাখছে। "বিনা যুদ্ধে নাহি দিব সুচ্যগ্র মেদিনী"। সবাইকে বাজার ধরতে হবে। হসপিটালে পেশেন্ট বেশি আনতে হবে, মিডিয়াতে বেশি বিজ্ঞাপন আনতে হবে, স্কুল কলেজে বেশি ছাত্র ছাত্রী আনতে হবে, এন জি ওকে বেশি সেবা প্রদান করতে হবে ইত্যাদি। লিস্ট বাড়ালেই বাড়বে। কত আর বলব! সেটা খুব একটা গুরুত্বপূর্ণ বিষয়ও নয়। গুরুত্বপূর্ণ হল, এই বাজার ধরার খেলায় ক্ষতিগ্রস্ত কে হচ্ছে? এই খেলায় মাততে গিয়ে কোয়ালিটির সাথে, পরিষেবার সাথে কমপ্রোমাইজ করছি না তো আমরা? তা যদি হয়, তাহলে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে সমাজ, ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে জনজীবন। একটা ছোট্ট উদাহরণ দিই। প্রায়ই আমরা খবর পাই, দুটো বাসের রেষারেষিতে জানলার ধারে বসে থাকা এক ব্যক্তির হাত কেটে রাস্তা পড়ে গেছে। জোরে ছুটতে গিয়ে দুটো বাস এত পাশাপাশি এসে গিয়েছিল যে ঘষটানিতে এই দুর্ঘটনা। তা, বাস দুটো এমন বেপরোয়াভাবে ছুটছিল কেন? ঘুরেফিরে সেই মার্কেটিং। একই রুটের দুটো বাসকেই বাজার ক্যাপচার করতে হবে। মুনাফা লুটতে হবে। আমরা পড়েছিলাম, বাজারে টিকে থাকার জন্য প্রথম দিকে কোন দ্রব্যের বাজার মূল্য দ্রব্যটি তৈরি করার খরচের থেকেও অনেকসময় কম রাখতে হয়। এখন ব্যাপারটা উল্টো বলে প্রতীয়মান হয়। প্রথমেই বেশি দামে দ্রব্য বাজারে নিয়ে এস, হেব্বি হেব্বি নায়িকাদের দিয়ে বিজ্ঞাপনে টিভির পর্দা কাঁপিয়ে দাও, প্রমাণ করে দাও এই বেশি দামে কেনাটাই স্ট্যাটাস সিম্বল। এর পরে পাবলিকে দ্রব্যটি খাবেই খাবে। পোস্ত এখন মহার্ঘ বস্তু। আগে মাসে এক কেজি পোস্ত যারা কিনত এখন মাসে একশ গ্রামে কাজ চালায়। দাম বেড়েছে মানে পোস্তর মান ভাল হয়েছে তা কিন্তু নয়। আমার দোকানদার জানাল অনেক অসাধু ব্যবসায়ী এক ধরনের শস্যবীজ পোস্তয় মিশিয়ে দিচ্ছে। কম পোস্ত বেচে বেশি লাভ। ওর কাছে আসল নকল দুটো পোস্তই আছে। আমি চাইলে নকলটা নিতে পারি। কিন্তু সেটা আমার শরীরের জন্য ঠিক হবে না। অাসলটার দাম একটু বেশি হলেও ওটাই নেওয়া ভাল। (মার্কেটিং এর সম্ভ্রান্ত নমুনা।) সুতরাং বেশি দামে পোস্ত কিনে পলিপ্যাকে নিয়ে সবাই কে দেখাতে দেখাতে বাড়ি ফিরলাম। এটাও মার্কেটিং। পোস্ত কিনেছি মানে, আমি অনেক বড় "হনু"। সেটা সবাইকে জানানো হল। আমার বাজার দর বাড়ল। টি আর পি বাড়াও আর মজায় থাকো। এই আদর্শে এখন চলছি আমরা। বলা ভুল হল। চলছি না, ছুটছি। হয়ত অপেক্ষায় আছি, ছুটতে গিয়ে কখন হোঁচট খেয়ে পড়ব। তারপর হয়ত পিঠদৌড় দিয়ে মূল স্রোতে ফিরব। কারণ ইতিহাস সাক্ষী, আজ পর্যন্ত হঠাৎ গজিয়ে ওঠা কোন কিছুই চিরস্থায়ী হয় নি।

article thumbnail

উপলব্ধিঃ সম্পর্ক- সম্পর্ক- নিখিল কুমার চক্রবর্তী

উপলব্ধি  (সম্পর্ক) খুব ছোট্টবেলায় পড়াশোনার পাঠ আমাদের ছিল না বললেই চলে। বাবা মায়ের কাছে শোনা, প্রথম ইস্কুলে গিয়েছিলাম পাঁচ বছর বয়সে। ইনফিন ক্লাসে। সেখান থেকে ডবল প্রমোশন পেয়ে এক লাফে ক্লাস টু তে। ঐ সময়েই শিখেছিলাম, ইস্কুলে মাস্টারমশাইরা সবাই গুরুজন। তাঁরা যা বলবেন অক্ষরে অক্ষরে পালন করতে হয়। এমন কি রোজ নিয়ম করে গাঁট্টা বা বেত্রাঘাত দিলেও মুখ বুজে সহ্য করতে হয়। আর সহপাঠীরা সবাই বন্ধু। তাদের সাথে সবকিছু শেয়ার করতে হয়। মিলেমিশে থাকতে হয়। সহপাঠী মানে শুধু নিজের ক্লাসের ছেলেমেয়েরা নয়। নীচে বা ওপরের ক্লাসের ছেলেমেয়েরাও সহপাঠী এবং বন্ধু। তাই করতামও আমরা। আজও তাই সেইসব মাষ্টারমশাই বা সহপাঠীদের সাথে সুসম্পর্ক বর্তমান। এখন চারিদিকে অন্যচিত্র। মাষ্টারমশাইদের গুরুজন মানা হয় কি না, জানি না। তবে ছাত্র ছাত্রীদের গায়ে হাত তোলার অধিকার তাঁদের নেই। রে রে করে লোকাল দাদা, জাতীয় নেতা, মানবাধিকার কমিশন, মিডিয়া ইত্যাদি যত প্রতিষ্ঠান বা পরিত্রাতা আছে সবাই টি আর পি বাড়ানোর ময়দানে নেমে পড়বে। এখন সবাই জানে, পাবলিকে কি খায়! যা খায়, তাই খাওয়াতে হবে তো না কি! সহপাঠীরাও কেউ বন্ধু নয় এখন। প্রতিযোগী। কারোর সাথে কিছু শেয়ার করতে নেই। তাহলে সেও ভাল নম্বর পেয়ে যাবে। প্রতিযোগী তৈরি হয়ে যাবে। এখন কেউ চায় না, ময়দানে তার কোন প্রতিযোগী থাকুক। সে ইস্কুল, চাকরির জায়গা বা রাজনীতির ময়দান যাই হোক না কেন! নারী পুরুষের সম্পর্কও আর নির্ভরশীলতা, বিশ্বাস বা ভরসার সম্পর্কে আটকে নেই। সভ্যতার ঝকমকানিতে সে সম্পর্কেও এখন পারস্পরিক বোঝাপড়ার চেয়ে পারস্পরিক স্বার্থসিদ্ধির আগ্রহ বেশি। এই সম্পর্কটা অনেকটা দাঁত আর জিভের মধ্যেকার সম্পর্কের মত হয়ে গেছে। সুযোগ পেলেই একে অপরকে কামড়ে দেয় বা আঘাত দেয়। দাঁত যেমন সুযোগ পেলেই জিভের রক্ত বের করে দেয়, তেমনি দাঁত দুর্বল হলেই জিভ তাকে ঠেলে ফেলে দেওয়ার চেষ্টা করে। তবে দাঁত আর জিভের মধ্যে কোনটা নারী আর কোনটা পুরুষ তা নির্ধারণ করা খুব কঠিন। দাঁত যেহেতু জিভের পরে জন্মায়, মানে, জিভের থেকে বয়সে ছোট তাই সামাজিক নিয়মে দাঁতকেই নারী ধরে নেওয়া যেতে পারে। তাছাড়া, চরিত্রগত মিলের জন্যও দাঁতকেই নারী ভাবা বাঞ্ছনীয়। আর একটা বিষয় উল্লেখযোগ্য। নারী পুরুষের যৌথ প্রচেষ্টাতেই সমাজ বা সংসার টিকে থাকবে এ বিষয়ে দ্বিমত থাকা উচিত নয়। আগেকার সম্পর্কে পুরুষ বহির্জগতে ব্যপ্ত থাকলে নারী অন্দরমহল সামলাত। এটা "ডিভিশন অব লেবার" ছাড়া আর কিছুই নয়। এতে পরবর্তী প্রজন্ম উপকৃত হত বেশি। এখন দুজনেই বহির্জগতে ব্যপ্তদ হয়ে যাওয়ায় পরবর্তী প্রজন্ম ক্ষতিগ্রস্ত হয়ে যাচ্ছে না তো? "ডিভিশন অব লেবার" যে আমাদের সমাজে সম্পর্ক তৈরিতে অনেককটাই ভূমিকা নিত বা নেয় তা অস্বীকার করার কোন উপায়ই নেই। সেই মুনি ঋষিদের সময়েই "ডিভিশন অব লেবার" এর ওপর ভিত্তি করেই তৈরি হয়েছিল "বর্ণাশ্রম" প্রথা। লেখাপড়া শেখা বুদ্ধিমান ব্রাহ্মণরা পুজোআচ্চার কাজ করবে, শারীরিকভাবে শক্তিশালী ক্ষত্রিয়রা দেশ রক্ষার কাজ করবে, বৈষয়িক বুদ্ধিসম্পন্ন বৈশ্যরা ব্যবসাবানিজ্য করবে, আর বাকিরা সব শূদ্র। তারা অন্যান্য কাজ করবে। এমন কি এদের বৈবাহিক সম্পর্কও নিজেদের গ্রুপের মধ্যে সীমাবদ্ধ ছিল। এখন ও সব বালাই নেই। ব্রাহ্মণ সন্তান দেশরক্ষার কাজ করছে আবার ব্যবসাবানিজ্যও করছে। ক্ষত্রিয়, বৈশ্য সবাই সবার কাজ করছে। তাহলে বৈবাহিক সম্পর্কও শুধুমাত্র নিজেদের গ্রুপে সীমাবদ্ধ থাকা উচিত নয়। থাকছেও না। অর্থাৎ, এক্ষেত্রেও সম্পর্কের সজ্ঞা পাল্টাচ্ছে। যুগোপযোগী হচ্ছে সম্পর্ক। তাই যদি হয়, তাহলে ইস্কুলে, চাকুরিস্থলে, রাজনীতির ময়দানে সর্বত্র সম্পর্ক যে অনেকটা প্রতিযোগীতামূলক হয়ে যাচ্ছে তাও কি সময়ের দাবীতে? মানুষের সাথে মানুষের, মানুষের সাথে অন্য প্রাণীর বা মানুষের সাথে প্রকৃতির পারস্পরিক নির্ভরশীলতা আর বোঝাপড়ার সম্পর্কের বদলে শুধুই কি স্বার্থসুখের সম্পর্ক নিয়ে বেঁচে থাকব আমরা? এতে "ইকোসিস্টেম" বজায় থাকবে তো? বজায় থাকবে তো প্রকৃতিনির্ভর মানবের সমাজ আর সভ্যতা? মনে হয়, কেউই এর উত্তর খুঁজতে আগ্রহী নয়। আগ্রহী হলে সম্পর্কের চরম অবনতি নিয়ে আমাদের বেঁচে থাকতে হত না। পাঁচ বছরের শিশুকন্যাকে তার বয়স্ক আত্মীয়ের ধর্ষণের বা পুত্র অথবা কন্যার হাতে পিতা/মাতা খুন হওয়ার খবর পরেও আমরা নিশ্চুপ থাকতাম না। এ এক অবক্ষয়ের সম্পর্কের, মূল্যবোধহীনতার সম্পর্কের আবর্তে ঘুরে মরছি আমরা।

article thumbnail

উপলব্ধিঃ ব্যবহারের ভাষা- নিখিল কুমার চক্রবর্তী

ব্রিটিশরা মোটামুটি দুশো বছরের মত আমাদের মাথায় চেপে বসেছিল। তাতে যা হওয়ার তা হয়েছে। এত বছর ধরে মাথার ওপর এমন ভারী বোঝা চাপানো থাকলে শিরদাঁড়া বেঁকে যেতে বাধ্য। গেছেও। বেঁকে গিয়ে এমন অবস্থা যে আর মাথা উঁচু করার কোন উপায়ই খুঁজে পাওয়া যাচ্ছে না। শুধু শারীরিক পরিবর্তন নয়, মানসিক পরিবর্তনও ঘটে গেছে। অভ্যাস খারাপ হয়ে গেছে ভীষণরকম। দুশো বছর মাথায় ইংরেজরা চেপে থাকলে যা হয় আর কি! ইংরাজি না বললে, ইংরেজদের পোষাক না পরলে নিজেকে যেন ভদ্রদুরস্ত বলে প্রমাণ দেওয়া যায় না। দুজন বাঙালি বা দুজন পাঞ্জাবি অথবা দুজন মাড়োয়াড়িও নিজেদের মধ্যে ইংরাজিতে কথা বলে আত্মপ্রসাদ অনুভব করে। যত দিন যাচ্ছে তত অভ্যাস খারাপ হচ্ছে। আমাদের নিজস্ব পোষাক ধূতি পাঞ্জাবি বা শাড়ি এখন উৎসবের পোষাক। অবশ্য এটা মেনে নেওয়া ভাল যে, আজকের জেট যুগে ধূতি পাঞ্জাবি বা শাড়ি পরে রাস্তাঘাটে বেরুনোটা বিপজ্জনক। সেই হিসাবে উৎসবে ব্যবহার হলেও অন্তত কিছুটা মর্যাদা দেওয়া হয় নিশ্চয়ই। অনেকবছর আগে যখন আমি কলকাতায় থাকতাম না, তখন একটা ঘটনা ঘটেছিল। আমার এক সিনিয়র সহকর্মী দাদার সাথে বিশেষ প্রয়োজনে কলকাতায় এক রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাঙ্কে একাউন্ট ওপেন করতে এসেছি। বর্ধমানের এড্রেস দেখে প্রথমেই ওখানে একটু নাক সিঁটকিয়ে জানানো হল, বাড়ির ঠিকানায় একটা রেজিস্ট্রি চিঠি যাবে। সেটা নিয়ে এসে দেখালে তবেই চেকবুক, পাশবুক দেওয়া হবে। সন্তুষ্ট হয়ে চলে এলাম। ওমা, দু তিন মাস পরেও চিঠি আসে না। একাউন্টার আমার খুব প্রয়োজন ছিল। অথচ কাজ হচ্ছে না। যতবার কলকাতায় গিয়ে খোঁজ করি ততবারই শুনি এক কথা। চিঠিটা আনতে হবে। ওটাই না কি এড্রেস ভেরিফিকেশন। তখন এত মুঠোফোনের চল ছিল না। ল্যান্ডফোনও কতিপয় লোকের বাড়িতে শোভাবর্ধক উপাচার হিসাবে থাকত। সুতরাং, কলকাতায় গিয়ে বারবার খোঁজখবর নিতে হত। বারবার কলকাতা গিয়ে বিরক্ত হয়ে একদিন বলেই ফেললাম, "এড্রেস ভেরিফিকেশন করতে হয় তো লোক পাঠান। এত মাস ধরে চিঠি পাঠিয়ে বসে আছেন কেন?" বেশ ধমক খেতে হল। শুনলাম, "নিশ্চয়ই আপনার এড্রেসে  গণ্ডগোল আছে, না হলে চিঠি পাচ্ছেন না কেন?" অপমানিত বোধ করলাম। শেষে কিনা আমার ঠিকানা ঠিক নয়? খুব ঝামেলায় পড়লাম তো! সেই সহকর্মী দাদাকে বললাম। উনি সব শুনে বললেন, "বাংলায় কথা বললে কেউ শুনবে না। ওখানে গিয়ে ইংরিজিতে কথা বল। তার আগে নিজের প্যাডে ইংরিজিতে লিখে একটা ঝেড়ে কমপ্লেন কর। লিখবি যে ওদের ব্যবহারে তুই অপমানিত বোধ করছিস।" তাই করলাম। পরিস্কার জানালাম, "তোমাদের সিস্টেমের জন্য একজন ভ্যালুয়েবল কাস্টমার কেন সাফারার হবে? এড্রেস ভেরিফিকেশন করতে হলে লোক পাঠাও। যদি তোমরা এইভাবে আমাকে আরও হেনস্থা কর, তাহলে আমি লিগ্যাল একশন নোব।" এর সপ্তাহ দেড়েক পরে ব্যাঙ্কে দেখা করতে গেলাম। সেখানে কি হল তা আর ব্যক্ত করলাম না। ম্যাক্সিমাম মিনিট দশেক সময়ের মধ্যে সমস্ত কিছু আমার হাতে তুলে দেওয়া হয়েছিল। এমনকি ম্যানেজার তার চেম্বারে বসিয়ে চা খাইয়ে দেরি হওয়ার জন্য ক্ষমাপ্রার্থী হয়েছিলেন। হ্যাঁ, সহকর্মী দাদার কথা অনুযায়ী আমি ওখানে আমার ক্ষমতা অনুযায়ী যথাসম্ভব ইংরাজিতেই কথা বলেছিলাম। ওনার কাছেই শেখা, কোথাও কাজের জন্য গিয়ে "এক্সকিউজ মি" বলে শুরু করলে এটেনশন বেশি পাওয়া যায়। জীবনে এই উপদেশ পালন করে যে উপকৃত হইনি তা জোর দিয়ে বলতে পারব না। আমি সবসময় "সুপ্রভাত", "শুভরাত্রি" এইভাবে বলতে ভালবাসি। এরজন্য যেমন আমার আলাদা পরিচয় তৈরি হয়েছে তেমনি লোকের বিরাগভাজনও হয়েছি বৈ কি! ফোন তুলে "সুপ্রভাত" বললেই অপর প্রান্তের মানুষটি বুঝে যেত এ প্রান্ত থেকে কে কথা বলছে। আবার অনেকে "বাঙালি প্রেমিক" তকমা দিয়ে অনেক বিরুদ্ধতাও করেছে। এই সংকীর্ণ মানসিকতাই আমাদের অভ্যাস খারাপ করে দিয়েছে। ইংরাজি ভাষাকে অবজ্ঞা বা অস্বীকার করার কোন উপায় আমাদের নেই। এত ব্যাপক এবং বিশাল পরিধি নিয়ে বিস্তৃত থাকা এই ভাষার গ্রহনযোগ্যতা নিয়ে সন্দেহের কোন অবকাশই নেই। কিন্তু তার জন্য অপ্রয়োজনে নিজের ভাষাকে পরিহার করতে হবে কেন? কেন অন্য ভাষাকে ব্রাত্য  করে দিতে হবে? ছোট ভাবতে হবে? মনের ভাব প্রকাশের মাধ্যমই যদি ভাষা হয়, তাহলে অনাবশ্যকভাবে মাতৃভাষা ছেড়ে অন্যভাষা ব্যবহার করার মধ্যে কি মাধুর্য থাকতে পারে, তা আমার বোধগম্য নয়। এখনকার ছেলেমেয়েরা বাংলা, ইংরাজি, হিন্দি মিলিয়ে অদ্ভূত এক ভাষা ব্যবহার করে। তারা এতেই সাবলীল। আমরা যদি তা মেনে নিতে না পারি তাহলে হয়ত খামতি টা আমাদের মধ্যেই রয়ে গেছে। ওরা তো আর ব্রিটিশের গোলামি করেনি। তাহলে? এটা বোধহয় অতি আধুনিকতার একটা পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া। আমাদের মত প্রাচীনপন্থীদের মাথায় ঢুকবে না। এতে ভাল হবে না মন্দ হবে তা সময়ই বলে দেবে।

article thumbnail

উপলব্ধিঃ বাথরুম- নিখিল কুমার চক্রবর্তী

বেশ কিছুদিন বা বেশ কিছুক্ষণ পরে বাইরে থেকে ঘুরে আসার পর বাথরুমে ঢুকে বাথরুমের মেঝেটা শুকনো খটখটে দেখলে বেশ আনন্দ হয়। এমনিতে বাথরুমের মেঝে সবসময় ভিজেই থাকে। জলে ভিজে থাকার কারণে হাল্কা শ্যাওলা জমে কখনও সখনও। শুকনো দেখার পর প্রথমে বিশ্বাস হয় না। চারদিক পা বুলিয়ে দেখে নিই, সত্যি সত্যিই শুকনো তো? নিশ্চিন্ত হওয়ার পর সারা মনে একটা প্রশান্তির, একটা সুখানুভূতির শিহরণ বয়ে যায়। কেন এমন হয়? বাবা বলতেন, "ঠাকুর বলেছেন রাজহংসের মত হও। দুধ আর জল মেশানো থাকলে সেখান থেকে দুধটুকু আলাদা করে নিতে শেখ।" তখন এত তত্ত্বকথা বুঝতাম না। মনে হত, এটা আবার হয় না কি? দুধ আর জল মেশানো থাকলে দুধকে আলাদা করা সম্ভব না কি? সত্যিই কি রাজহাঁস তা পারে? পরখ করে দেখি নি কোনদিন। বাবার কথাই সার কথা। তিনি তো জীবনের অভিজ্ঞতা থেকে বলছেন! সুতরাং মেনে নিয়েছি। আজ এই জীবন সায়াহ্নে এসে বুঝি, বাবা কত খাঁটি কথা বলতেন। সমাজের প্রতিটা স্তরে দুধ আর জল এক হয়ে মিশে আছে। সেখান থেকে দুধকে আলাদা করাটাই কঠিন। তবে, তা করতে পারলে জীবন নিশ্চয়ই শান্তির হবে। সুখের হবে কি না, তা জানি না। কারণ, সুখ কথাটাই আপেক্ষিক! কার যে কিসে সুখ আসে তা হয়ত সে নিজেই জানে না। কেউ  দুধ বেচে মদ খেয়ে সুখের স্বাদ পায় তো কেউ মদ বেচে দুধ খেয়ে। এই যে বাথরুম শুকনো দেখে আনন্দ পাওয়া, এটাও তো সেই একই পর্যায়ের কথা। যা দেখতে অভ্যস্ত আমরা, তার থেকে আলাদা কিছু দেখে আনন্দ পাওয়া। কোথাও একটা কার্টুন দেখেছিলাম, বেতাল, অরণ্যদেব, শক্তিমান এবং এক সৎ রাজনীতিবিদের ছবি এঁকে বলা হয়েছিল এগুলোর মধ্যে একমাত্র সৎ রাজনীতিবিদই বাস্তবে সম্ভব নয়, বাকিগুলো বাস্তবে থাকলেও থাকতে পারে। তাই কোন রাজনীতিবিদ সৎভাবে সমাজের সেবা করার জন্য সামনে এলে তাঁকে মানুষ হৃদয়ে আসন দেয়। তাঁর সান্নিধ্যে আনন্দ পায়। এখনকার প্রজন্ম সাধারণত মূল্যবোধকে গুরুত্ব দেয় না। তারা কেরিয়ারের ভ্যালু বোঝে, চাকরির ভ্যালু বোঝে কিন্তু মূল্যবোধ বোঝে না। আমরাই তাদের বুঝতে শেখাই নি। ছোট্টবেলা থেকে নিজেকে নিয়ে ব্যস্ত থাকতে শিখিয়েছি। দু আড়াই বছর বয়স থেকে পিঠে বইয়ের বোঝা চাপিয়ে স্কুলে পাঠিয়ে কেরিয়ার সচেতন হতে শিখিয়েছি, দাদু দিদিমা ঠাকুমা মামা মাসী পিসির সম্পর্ক না বুঝিয়ে শুধুমাত্র ড্যাড মমে আবদ্ধ থাকতে শিখিয়েছি। অর্থাৎ বাড়ির বাগানে যত্ন করে বাবলাগাছ বসিয়েছি। সেই গাছে মিষ্টি আর রসাল আম ফলবে কি করে? তারই মধ্যে যদি কেউ যত্ন করে সত্যি সত্যিই মিষ্টি আর রসাল আম গাছ বসায় এবং সেরকম ফল পায় তাহলে তা সেই শুকনো খটখটে বাথরুমের মেঝের মতই হবে। তাই না? সমাজের প্রতিটা মেঝেতে জল জমতে জমতে যে শ্যাওলা পড়ে গেছে তা তুলে ফেলার জন্য প্রকৃত ব্লিচিং পাউডার প্রয়োজন। ব্যতিক্রম কি নেই? নিশ্চয়ই আছে। না থাকলে এই জগত সংসার চলছে কি করে? তবে, ব্যতিক্রম নিয়মের অস্তিত্বকেই প্রমাণ করে। যে কোন খারাপ নিয়মের ভাল ব্যতিক্রম থাকতে পারে আবার ভাল নিয়মের খারাপ ব্যতিক্রম থাকতে পারে। প্রথমের থেকে দ্বিতীয়টাই কাম্য হওয়া উচিত। তা হচ্ছে না বলেই চারদিকে বিশৃঙ্খলা! তবে ভাল মন্দে মেশানো জীবন শুধুমাত্র ব্যতিক্রমে আবদ্ধ থাকতে পারে না। অভিজ্ঞতার নিরিখে ভালকে ভাল বলে বা খারাপকে খারাপ বলে চিনতে পারাটাই আসল। যতদিন না সে শিক্ষা আমাদের হচ্ছে ততদিন বাথরুম শুকনো হবে না। শ্যাওলা জমে থাকবে মেঝেতে। হড়কে পড়ে যাওয়ার ভয় থাকবে। অর্থাৎ, সমাজে বা জীবনে শিক্ষা প্রতিফলিত হবে না। আমরা নচিকেতার গলায় "যে মেয়েটা রোজ রাতে বদলায় হাতে হাতে তার অভিশাপ নিয়ে চলাই জীবন" বা "প্রতিদিন চুরি যায় মূল্যবোধের সোনা আমাদের স্বপ্ন আমাদের চেতনা" গানে হাততালি দিয়ে আত্মরতিতে মগ্ন হই কিন্তু যে শ্যাওলার দিকে তিনি আঙ্গুল তুলেছেন তা পরিষ্কার করতে সচেষ্ট হই না। এ এক অন্য ধ্বংসলীলা, অন্য রতির খেলা। উত্তর আমাদেরই খুঁজতে হবে। কারণ বাথরুমটা আমাদের নিজেদের! এখানেই স্নান করে আমরা স্নিগ্ধ, শান্ত হই। {ads}

article thumbnail

নবান্নের লড়াই

আরো পড়ুন

কোভিড আতঙ্কের মাঝেই কেমন হল রাজ্যের অন্তিম দফার নির্বাচন ?

বিকেল ৫টা পর্যন্ত গড়ে মোট ভোট পড়েছে ৭৬.০৭ শতাংশ। মালদায় ভোট পড়েছে ৮০.০৬ শতাংশ, মুর্শিদাবাদে ভোট পড়েছে ৭৮.০৭ শতাংশ। এছাড়াও বাকি দুই বিধানসভা জেলায় অর্থাৎ বীরভূম এবং কলকাতা উত্তরে ভোট পড়েছে যথাক্রমে ৮১.৮৭ এবং ৫৭.৫৩ শতাংশ। আজকের দিনে রাজ্যের শেষ দফা নির্বাচনের ছবিটা মিলিয়ে মিশিয়ে। সকাল থেকে একাধিক যায়গায় বিক্ষিপ্ত অশান্তির ছবি ধরা পড়ে। আবার বেশ কিছু যায়গায় শান্তিপূর্ন ভোট হলেও স্বয়ং বুথ কর্মী ও পোলিং এজেন্ট রাই অভিযোগ করছেন মানা হচ্ছেনা করোনাবিধি, বজায় থাকছেনা সামাজিক দূরত্বও।  {link} আজকে সকাল থেকেই উত্তর কলকাতার বিভিন্ন যায়গা থেকে বিক্ষোভের খবর আসতে থাকে। বেলেঘাটা ও মানিকতলার নাম উঠে আসে বিশেষভাবে। অন্যদিকে জোড়াসাঁকোয় বুথে অভিযোগ উঠেছে কোভিড বিধি না মেনে চলার। বোলপুরের বিজেপি প্রার্থী অনির্বান গঙ্গোপাধ্যায়কে তাড়া করা হয় বাঁশ নিয়ে। সেইখানে উন্মত্ত জনতা ভেঙে দেয় তার গাড়ির কাঁচ। সেই ভিডিও ছড়িয়ে পড়েছে সংবাদমাধ্যম সহ সোশ্যাল মিডিয়াতে। বোলপুরের ইলামবাজারের এই কান্ড নিয়ে যথেষ্ট উত্তপ্ত রাজনৈতিক মহল। এছাড়াও শীতলকুচি বিধানসভা কেন্দ্রের সেই মর্মান্তিক ঘটনার পর আজ সেই কেন্দ্রে পুনঃনির্বাচন ছিল। এবারে ভোট শান্তিপূর্নই হয়েছে। রাজ্যে আজকে অবশেষে আটটি দফা সম্পূর্ন হওয়ার সাথে সাথেই সম্পূর্ন হল রাজ্যের ভোটগ্রহন পর্ব। কোথাও গিয়ে আজকের ভোটে মানুষের মধ্যে করোনা আতঙ্কের চিত্রটা অনেকটাই স্পষ্ট ছিল। এবার অপেক্ষা শুধু ফলপ্রকাশের।  {ads}

article thumbnail

বেলা ১টা পর্যন্ত গড়ে ভোট পড়েছে ৫৬.১৯ শতাংশ, বিক্ষিপ্ত অশান্তির মাঝেই চলছে অন্তিম দফার নির্বাচন

আজ রাজ্যে অন্তিম দফা অর্থাৎ অষ্টম দফার নির্বাচন। প্রথম সাতটি দফা সম্পূর্ন হওয়ার পর আজ অষ্টম দফায় নির্বাচনী লড়াই ৪টি জেলার মোট ৩৫টি বিধানসভা কেন্দ্রে। যার মধ্যে মালদহের ৬টি বিধানসভা কেন্দ্রে, মুর্শিদাবাদের ১১টি বিধানসভা কেন্দ্রে, বীরভূমের ১১টি এবং কলকাতার ৭টি বিধানসভা কেন্দ্রে। আজকেই রাজ্যে গণতান্ত্রিক উৎসবের শেষ দিন। কিন্তু ভোটের আবহে আজ অনেকটাই আতঙ্ক রয়েছে করোনার। বাড়তে থাকা মারণ ভাইরাসের প্রকোপে অনেকটাই ম্লান হয়ে পড়েছে একুশের বিধানসভা নির্বাচন। সকাল থেকেই সমস্ত বিধানসভা কেন্দ্রে ভোটগ্রহন শুরু হয়েছে। কিন্তু সকাল থেকেই বিভিন্ন যায়গা থেকে বিক্ষিপ্ত অশান্তির খবর ভেসে আসছে।  {link} আজ অর্থাৎ ২৯শে মে অষ্টম দফার নির্বাচনে যে কটি কেন্দ্রে বিশেষভাবে নজর থাকবে তার মধ্যে কলকাতার মানিকতলা, জোড়াসাঁকো, বেলেঘাটা অন্যতম। সকাল থেকেই বেলেঘাটা ও মানিকতলায় বিভিন্ন যায়গা থেকে বিক্ষিপ্ত অশান্তির খবর আসছে। এছাড়াও বিশেষ নজর থাকবে বোলপুর বিধানসভা কেন্দ্রে, অনুব্রত মন্ডলকে গতকাল থেকেই নজরবন্দী করে দেওয়া হয়েছে সরকারের পক্ষ থেকে। অজ ইতিমধ্যেই তিনি বাইকে চড়ে এসে তার ভোটও দিয়ে গেছেন। এছাড়াও যেসব কেন্দ্রে নজর থাকবে তার মধ্যে রয়েছে মানিকচক, মালদহ, ইংলিশবাজার, বহরমপুর, জলঙ্গি ইত্যাদি। আজকের ৩৫টি আসনেই লড়াই খুব জোরদার, সকালে টুইট করে বিপুল ভোটের ডাক দিয়েছেন অমিত শাহ, কোভিড বিধি মেনে চলার কথা বলেছে নরেন্দ্র মোদী। বেলা ১টা পর্যন্ত গড়ে ভোট পড়েছে ৫৬.১৯ শতাংশ।  {ads}

article thumbnail

বেলা ১টা পর্যন্ত গড়ে ভোট পড়েছে ৫৫.১২ শতাংশ, চলছে সপ্তম দফার নির্বাচনের ভোটগ্রহন

একে একে মোট ছয় দফা সম্পূর্ন হওয়ার পর আজ রাজ্যে সপ্তম দফার নির্বাচন। আজ অর্থাৎ ২৬শে এপ্রিল ভোট পশ্চিমবঙ্গের ৪টি জেলার মোট ৩৬টি কেন্দ্রে। যার মধ্যে মালদহে ৬টি আসনে, মুর্শীদাবাদে নির্বাচন ১১টি আসনে, পশ্চিম বর্ধমানের ৯টি এবং কলকাতা ও দক্ষিন দিনাজপুরে যথাক্রমে ৪ ও ৬ টি বিধানসভা কেন্দ্রে আজ নির্বাচনী লড়াই। সকাল থেকেই ভোটগ্রহন শুরু হয়েছে সমস্ত বিধানসভা কেন্দ্রগুলিতে। কিন্তু করোনার দাপটে অনেকটাই ম্লান হয়ে উঠেছে গনতান্ত্রিক উৎসব। কড়া পাহারার মধ্যেও কোথাও কোথাও বিক্ষিপ্ত অশান্তির খবর থাকলেও মোটামুটি ভাবে ভোট হচ্ছে শান্তিপূর্ন ভাবেই।  {link} আজকের সপ্তম দফার নির্বাচনী লড়াইয়ে যে সকল কেন্দ্রের দিকে বাংলার মানুষের বিশেষ নজর থাকবে তার মধ্যে একটি অবশ্যই আসানসোল দক্ষিন একদিকে তৃণমূলের প্রার্থী সায়নি ঘোষ আর অন্যদিকে তার বিরুদ্ধে লড়াইয়ে অগ্নিমিত্রা পাল। সকাল থেকে বিভিন্ন বুথে বুথে ঘুরে বেড়াচ্ছেন সায়নি ঘোষ। কয়েকটি যায়গায় তার সাথে পুলিশের বচসাও বেঁধেছে বলে সূত্রের খবর। এছাড়াও নজর থাকবে ভবানীপুর, মুর্শিদাবাদ, রাসবিহারী, বালিগঞ্জ ও পান্ডবেশ্বর সহ সাগরদিঘী ও আরও বিভিন্ন কেন্দ্রে।  {ads}

article thumbnail

রাতভর চলেছে বোমাবৃষ্টি, সকালেও উদ্ধার বোমা, ভোটের দিনে উত্তপ্ত ব্যারাকপুর

ষষ্ঠ দফার নির্বাচনকে ঘিরে উত্তপ্ত উত্তর ২৪ পরগনা।ভোটের আগের রাতে উত্তর ২৪ পরগনার ব্যারাকপুর লোকসভার অন্তর্গত্ আমডাঙা বিধানসভা কেন্দ্রে রাতভর বোমাবাজি চলে।এলাকার থানীয় বাসিন্দাদের মতে আমডাঙ্গা বিধানসভার সাধনপুর পঞ্চায়েতের অন্তর্গত রাহানা এক নম্বর এলাকায় রাত বারোটা নাগাদ বোমাবাজি হয়। তার উপর আজকে ফের ষষ্ঠ দফার ভোট শুরু হওয়ার সাড়ে ৪ ঘণ্টার মধ্যে আবারও তাজা বোমা উদ্ধার ঘিরে চাঞ্চল্য ছড়িয়ে পডে আমডাঙ্গা বিধানসভা কেন্দ্রের রংমহল ৮৩ নম্বর বুথের বাইরে।স্বাভাবিক ভাবেই ঘটনাকে কেন্দ্র করে বিপুল উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে সধারন মানুষের মধ্যে।  {link} স্থানীয় তৃণমূল কর্মীদের অভিযোগ আই এস এফ এর কর্মীরা এই তাজা বোমা রেখেছে। খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে ছুটে আসে আমডাঙা থানার বিশাল পুলিশবাহিনী পুলিশ গোটা এলাকা ঘিরে রেখেছে এবং বোম স্কোয়ার্ডকে খবর দেওয়া হয়েছে বোমা-গুলি কে উদ্ধার করার জন্য। এছাড়াও প্রায় ১০ থেকে ১২ টি বোমা ফাটানো হয়েছে রাতের অন্ধকারে কে বা কারা এই বোমা ফাটিয়েছে তা নিয়েও তদন্ত শুরু করেছে আমডাঙা থানার পুলিশ। {ads}

article thumbnail

বেলা ১টা পর্যন্ত ভোট পড়েছে ৫৭.৩ শতাংশ, শান্তিপূর্নভাবেই চলছে ষষ্ঠ দফার নির্বাচন

পঞ্চম দফা পর্যন্ত নির্বাচন সম্পূর্ন হওয়ার পর আজ রাজ্যে ষষ্ঠ দফার নির্বাচন। আজ ভোট মোট ৪৩টি বিধানসভা কেন্দ্রে। উত্তর ২৪ পরগনার ১৭টি আসনে, নদীয়ার ৯টি আসন সহ পূর্ব বর্ধমানের ৮টি ও উত্তর দিনাজপুরের ৯টি বিধানসভা কেন্দ্রে আজ নির্বাচনী লড়াই। সকাল থেকেই শান্তিপূর্নভাবে সমস্ত কেন্দ্রে ভোটগ্রহন চলছে। {link} আজ যে সমস্ত কেন্দ্রে জমাটি লড়াইয়ের সাক্ষী থাকতে পারে বাংলার মানুষ, তার মধ্যে অন্যতম কেন্দ্রে কৃষ্ণনগর উত্তর। মুখোমুখী লড়াইয়ে মুকুল রায় ও কৌশানি চট্টোপাধ্যায়। এছাড়াও ভাটপাড়া, চোপড়া, ইসলামপুর, করনদিঘি, রায়গঞ্জ, ইটাহার, নবদ্বীপ, বনগাঁ উত্তর ও দক্ষিণ উল্লেখযোগ্য কেন্দ্র। এর পাশাপাশি হাবড়া, ব্যারাকপুর, দমদম উত্তর সহ পূর্বস্থলীর দুই কেন্দ্রেও রাজ্যের মানুষের নজর থাকবে। সকাল থেকে কিছু যায়গায় বিক্ষিপ্ত অশান্তির খবর থাকলেও মোটামুটিভাবে শান্তিপূর্ন ভাবেই অনুষ্ঠিত হচ্ছে রাজ্যের ষষ্ঠ দফার নির্বাচন। বেলা একটা পর্যন্ত ভোট পড়েছে ৫৭.৩ শতাংশ।  {ads}

article thumbnail

তৃণমূল বিজেপি সংঘর্ষে রনক্ষেত্র সল্টেলেকের শান্তিনগর, ইটবৃষ্টি

আজ গনতন্ত্রের উৎসবের পঞ্চম দফা। সেই পঞ্চম দফা নির্বাচনেই রনক্ষেত্র হয়ে উঠল সল্টলেক। আজকে সকাল থেকেই উত্তেজনার আবহ সল্টলেকের শান্তিনগর এলাকায়। দুই পক্ষের হাতাহাতি ও ইটবৃষ্টিতে রনক্ষেত্র হয়ে উঠেছে এলাকা। দীর্ঘক্ষন অশান্তির পরিবেশ থাকার পর সেই স্থানে এসে পৌছায় বিশাল পুলিশ ও কেন্দ্রীয় বাহিনী এবং তারা এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে নিয়ে আসে। একজন মহিলা ভোটারকে রাস্তায় ফেলে মারধর করার অভিযোগ উঠেছে।  {link} স্থানীয় সূত্রের খবর বেলা ১০টা নাগাৎ হঠাতই সল্টলেকের শান্তিনগর এলাকায় পারস্পরিক বচসায় জড়িয়ে পড়ে তৃণমূল ও বিজেপির কর্মী সমর্থকেরা। সেই বচসাই ক্রমে হাতাহাতির আকার ধারন করে। ইটবৃষ্টিতে পরিস্থিতি আরও ধুন্ধুমার হয়ে ওঠে। গোটা রাস্তা ইটে ভরে যায়, এমনকি মহিলাদেরও মারধর করা হয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে। ঘটনাস্থলে দুই পক্ষেরই বেশ কিছুজন জখম হয়েছেন। দুই পক্ষই দুই পক্ষের বিরুদ্ধে অভিযোগ তুলেছে। বর্তমানে পরিস্থিতি সম্পূর্ন নিয়ন্ত্রনে। পরিস্থিতির সামান্য উন্নতি হতেই মাইকিং করে জমায়েত হটানোর চেষ্টা করা হয়। ভোটারদের বুথে যাওয়ার ব্যবস্থা করে দেওয়ার পাশাপাশি বহিরাগতদের এলাকা থেকে বের করে দেয় পুলিশ। {ads}

article thumbnail

আবহাওয়া

আরো পড়ুন

Weather Report : বাংলায় এবার বর্ষা আসবে ঠিক সময়েই

শেফিল্ড টাইম্‌স ডিজিটাল ডেস্ক :  ল্যান্ড ফল হয়ে গিয়েছে ঘূর্ণিঝড় রেমালের। দুর্যোগপূর্ণ আবহাওয়ার কারণে দিন দুই কমেছিল তাপমাত্রা (Weather Update)। ফের চড়েছে পারা। অস্বস্তিকর গুমোট আবহাওয়ায় প্রাণ ওষ্ঠাগত বঙ্গবাসীর। হাওয়া অফিসের খবর, বাতাসে রয়েছে রেমালের ছেড়ে যাওয়া প্রচুর পরিমাণ জলীয় বাষ্প। তার জেরেই এমন আবহাওয়া। আলিপুর আবহাওয়া অফিসের তরফে জানানো হয়েছে, বাতাসে আপেক্ষিক আর্দ্রতা এখনও ১০০ ছুঁই ছুঁই। তার জেরেই দক্ষিণবঙ্গে অস্বস্তিকর পরিস্থিতি। আপাতত বৃষ্টির সম্ভাবনা নেই। তবে চড়া রোদ থাকবে না, আকাশ থাকবে আংশিক মেঘলা। বিক্ষিপ্তভাবে দু’-এক পশলা হালকা থেকে মাঝারি বৃষ্টি হতে পারে। তার জেরে বাড়বে তাপমাত্রা। বাড়বে অস্বস্তিও। {link} দক্ষিণবঙ্গে আবহাওয়া অস্বস্তিকর হলেও, উত্তরবঙ্গে ব্যাপক বৃষ্টির পূর্বাভাস হওয়া অফিসের (Weather Update)। জলপাইগুড়ি, কোচবিহার এবং আলিপুরদুয়ারে হতে পারে ভারী থেকে অতিভারী বৃষ্টি। এজন্য জারি করা হয়েছে কমলা সতর্কতা। হাওয়া অফিসের খবর, বৃষ্টি হতে পারে ১১০ থেকে ২০০ মিলিমিটার পর্যন্ত। সঙ্গে বইতে পারে ৪০-৫০ কিমি বেগে ঝোড়ো হাওয়া। উত্তরের এই তিন জেলায় যেখানে কমলা সতর্কতা জারি করা হয়েছে, সেখানে হলুদ সতর্কতা জারি করা হয়েছে দার্জিলিং ও কালিম্পংয়ে। এই দুই জেলায় বৃষ্টি হতে পারে ৭০-১০০ মিলিমিটার। ৩০ থেকে ৫০ কিলোমিটার বেগে বইতে পারে ঝোড়ো হাওয়াও। হালকা থেকে মাঝারি বৃষ্টি হতে পারে মালদা ও দুই দিনাজপুরে। ২ জুন পর্যন্ত উত্তরবঙ্গের জেলাগুলিতে বৃষ্টি জারি থাকবে বলেও জানিয়েছে হাওয়া অফিস। {link} ৩০ মে কেরলে বর্ষা ঢুকবে। আবহবিদদের মতে, বাংলায়ও এবার বর্ষা আসবে ঠিক সময়েই। কেরলে ঢোকার আগে বর্ষা আসবে আন্দামানে। কেরলে বর্ষা কবে প্রবেশ করবে, তা দেখেই পরবর্তী বার্তা দিতে পারবে হাওয়া অফিস। পয়লা জুন হবে অষ্টাদশ লোকসভা নির্বাচনের শেষ দফার ভোট। গোটা দেশের সঙ্গে এদিন নির্বাচন হবে কলকাতা, উত্তর ও দক্ষিণ ২৪ পরগনার লোকসভা কেন্দ্রগুলিতে। এদিন ওই কেন্দ্রগুলিতে বজ্র-বিদ্যুৎ-সহ হালকা থেকে মাঝারি বৃষ্টি হওয়ার সম্ভাবনা। সঙ্গে বইতে পারে ৩০ থেকে ৩৫ কিলোমিটার বেগে হাওয়া (Weather Update)। {ads}  

article thumbnail

Cyclone : উপকূলের দিকে ধেয়ে আসছে রেমাল

শেফিল্ড টাইম্‌স ডিজিটাল ডেস্ক : বঙ্গোপসাগরে শক্তি বাড়াচ্ছে ঘূর্ণিঝড় রেমাল । ক্রমেই তা ধেয়ে আসছে উপকূলের দিকে। এখনও পর্যন্ত আবহাওয়াবিদদের যা ধারণা, তাতে শক্তিশালী এই ঘূর্ণিঝড়টি পশ্চিমবঙ্গের সাগরদ্বীপ ও বাংলাদেশের উপকূলের মাঝের কোনও জায়গায় গিয়ে আছড়ে পড়তে পারে। ঘূর্ণিঝড়ের ব্যাপক প্রভাব পড়ার তুমুল আশঙ্কা এরাজ্যেও। {link} ইতিমধ্যেই জোরকদমে তার প্রস্তুতিও শুরু করে দিয়েছে প্রশাসন। দক্ষিণ ২৪ পরগনার উপকূল তীরবর্তী এলাকায় গুলিতে খোলা হয়েছে কন্ট্রোলরুম । ইতিমধ্যেই দক্ষিণ চব্বিশ পরগনার সুন্দরবনের উপকূল তীরবর্তী ত্রাণ শিবির গুলি শেষ বেলার প্রস্তুতির কাজ মজুত রাখা হচ্ছে শুকনো খাবার ও পানীয় জল।সময় যত এগোচ্ছে ততই শক্তি নিয়ে ধেয়ে আসছে এই ঘূর্ণিঝড়।এদিকে, ঘূর্ণিঝড় মোকাবিলায় রাজ্যের উপকূলের দুই জেলায় চূড়ান্ত সতর্কতা নেওয়া হয়েছে। {link} পূর্ব মেদিনীপুর, দক্ষিণ ২৪ পরগনা জেলার উপকূলবর্তী এলাকাগুলোতে স্থানীয়দের সতর্ক করতে চলছে মাইকিং। সাগরদ্বীপ, কাকদ্বীপ, নামখানা-সহ সুন্দরবন এলাকার বিভিন্ন প্রান্তেও চলছে সতর্কতামূলক প্রচার। উপকূলের এলাকাগুলি থেকে বাসিন্দাদের সরানোর কাজ চলছে জোরকদমে। প্রতিনিয়ত আবহাওয়ার গতি-প্রকৃতির উপর নজর রাখছেন প্রশাসনের কর্মীরা। সব মিলিয়ে আরও একটা ঘূর্ণিঝড় মোকাবিলায় পুরোদস্তুর তৈরি প্রশাসন। {ads}

article thumbnail

Weather Update : হঠাৎ এত গরমের কারণ কি ?

শেফিল্ড টাইম্‌স ডিজিটাল ডেস্ক : গরমে কাহিল পরিস্থিতি, বিভিন্ন জায়গায় মাত্রা অতিরিক্ত গরম পড়ায় অস্বস্তি বেড়ে গেছে। হঠাৎ করে কেন বাড়লো গরম? নাসার তরফ থেকে জানানো হয়েছে, আগামী ২৫ মে থেকে শুরু হবে নওতাপ। শুরু হওয়ার সাথে সাথে সূর্য যেন আগুন ছড়াতে শুরু করবে পৃথিবীর বুকে। {link} প্রতিবছরই এমন একটা সময় থাকে যে সময় গরম সর্বোচ্চ সীমায় পৌঁছায়। সূর্য প্রতি বছর যে সময় রোহিণী নক্ষত্রে অবস্থান করে, সেই সময়টায় সবেচেয়ে বেশি গরম পড়ে। আগামী ২৫ মে সকাল ৩টে ১৬ মিনিটে সূর্য রোহিণী নক্ষত্রে প্রবেশ করবে। রোহিণী নক্ষত্রে সূর্যের অবস্থানের এই ১৫ দিন সারা বছরের মধ্যে সবচেয়ে উষ্ণ হয়। সূর্য রোহিণী নক্ষত্রে ১৫ দিন থাকলে , প্রথম ৯ দিন অতিরিক্ত গরম পড়ে, এই নয় দিনের  গরম সবচেয়ে মারাত্মক আকার ধারণ করে। {link} এই ৯ দিনকে নওতাপ বলা হয়। এই  নওতাপ শুরু হবে ২৫ মে থেকে চলবে ২ জুন পর্যন্ত। প্রচন্ড গরম থেকে বাঁচতে চিকিৎসকরা জানিয়েছেন বেশি পরিমাণে জল খেতে হবে, তেল ঝাল মসলাযুক্ত খাবার না খাওয়াই ভালো। হালকা খাওয়ার ব্যাপারে পরামর্শ দিয়েছেন চিকিৎসকরা। এছাড়া ঢিলেঢালা জামাকাপড় পড়বার পরামর্শ দেওয়া হয়েছে। বিশেষ জরুরী না থাকলে প্রচন্ড রোদের মধ্যে বাইরে না বেরোনই ভালো। {ads}

article thumbnail

Cyclone : শনিবারই তৈরি হতে পারে ঘূর্ণিঝড় ‘রেমাল’

শেফিল্ড টাইম্‌স ডিজিটাল ডেস্ক : সাগরের বুকে শনিবারই তৈরি হতে পারে ঘূর্ণিঝড় ‘রেমাল’।  বিজ্ঞপ্তি জারি করে তেমনটাই জানাল আবহাওয়া দফতর। হাওয়া অফিস জানিয়েছে, বঙ্গোপসাগরের উপর যে ঘূর্ণাবর্ত ছিল, তা শক্তি বৃদ্ধি করে ইতিমধ্যেই নিম্নচাপ অঞ্চলে পরিণত হয়েছে। {link} দক্ষিণ-পশ্চিম এবং তৎসংলগ্ন পশ্চিম-মধ্য বঙ্গোপসাগর থেকে তা আরও উত্তর-পূর্ব দিকে সরে বর্তমানে পশ্চিম-মধ্য ও তৎসংলগ্ন দক্ষিণ বঙ্গোপসাগরের উপর অবস্থান করছে। এই নিম্নচাপ অঞ্চল বৃহস্পতিবার আরও উত্তর-পূর্বে সরে গিয়ে শুক্রবার সকালের মধ্যে মধ্য বঙ্গোপসাগরে নিম্নচাপে ঘনীভূত হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। {link} এর পর এটি আরও উত্তর-পূর্ব দিকে অগ্রসর হতে হতে শনিবার সকালে পূর্ব-মধ্য বঙ্গোপসাগরের উপর ঘূর্ণিঝড়ে পরিণত হতে পারে বলেই জানিয়েছে অফিস। আবহবিদেরা আরও জানিয়েছেন, নিম্নচাপ যদি ঘূর্ণিঝড়ে পরিণত হয়, তা হলে তা আরও উত্তরে অগ্রসর হয়ে রবিবার সন্ধ্যা নাগাদ বাংলাদেশ এবং তৎসংলগ্ন পশ্চিমবঙ্গ উপকূলের কাছাকাছি প্রবল ঘূর্ণিঢঝড় হিসাবে আছড়ে পড়তে পারে। {ads}

article thumbnail

Forecast : বসন্তেই রাজ্যে আবার বৃষ্টির পূর্বাভাস

শেফিল্ড টাইম্‌স ডিজিটাল ডেস্ক : বসন্তেই রাজ্যে বৃষ্টির পূর্বাভাস। বুধবার থেকে হালকা থেকে মাঝারি বৃষ্টির সম্ভবনা দক্ষিণবঙ্গের কয়েকটি জেলায়। বৃষ্টি হতে পারে উত্তরবঙ্গেও। অন্তত এমনই জানিয়েছে আলিপুর আবহাওয়া দফতর। হাওয়া অফিসের খবর, বুধবার বৃষ্টিতে ভিজতে পারে দুই বর্ধমান, বীরভূম, মুর্শিদাবাদ ও নদিয়া জেলা। এই জেলাগুলিতে হতে পারে হালকা বৃষ্টি। বৃহস্পতিবার বৃষ্টি হতে পারে কলকাতা সহ দক্ষিণবঙ্গের সব জেলায়ই। বৃষ্টি হতে পারে হালকা থেকে মাঝারি। শুক্রবারও বৃষ্টিতে ভিজতে পারে দুই চব্বিশ পরগনা এবং দুই মেদিনীপুরের কয়েকটি এলাকা। হাওয়া অফিসের তরফে বৃষ্টির পূর্বাভাস রয়েছে উত্তরবঙ্গেও। আজ, সোমবার থেকে শুক্রবার পর্যন্ত হালকা বৃষ্টির সম্ভাবনা রয়েছে দার্জিলিং জেলায়। বুধবার হালকা থেকে মাঝারি বৃষ্টি হতে পারে কালিম্পং ও জলপাইগুড়ি জেলায়। হালকা বৃষ্টি হতে পারে আলিপুরদুয়ার, কোচবিহার, দুই দিনাজপুর ও মালদা জেলায়। বৃহস্পতিবার হালকা থেকে মাঝারি বৃষ্টি হতে পারে উত্তরবঙ্গের সব জেলায়। দার্জিলিং ও কালিম্পং জেলায় বিক্ষিপ্তভাবে বৃষ্টি হতে পারে শুক্রবার।  {ads}

article thumbnail

বাঁকুড়ায় সর্বোচ্চ তাপমাত্রাকে সঙ্গী করে চলার পর অবশেষে স্বস্তির বৃষ্টি

নিজস্ব সংবাদদাতা, বাঁকুড়া: দীর্ঘ প্রতিক্ষার অবসান। অবশেষে স্বস্তির বৃষ্টি বাঁকুড়ায়। হাওয়া অফিসের পূর্বাভাস সত্যি করে সোমবার বৃষ্টির দেখা মিললো বাঁকুড়ায়। এদিন বিকেলের পর আকাশ কালো মেঘে ঢেকে যায়। তার কিছুক্ষণের মধ্যেই শুরু হয় বৃষ্টি। হাঁফ ছেড়ে বাঁচেন জেলাবাসী। প্রসঙ্গত, গত সপ্তাহেই লাল মাটির জেলায় তাপমাত্রার পারদ চরমে ওঠে। সর্বোচ্চ ৪৪ দশমিক ৪ ডিগ্রী সেলসিয়াস তাপমাত্রাকে সঙ্গী করে বিশ্বে সপ্তম উষ্ণতম স্থানের শিরোপা আদায় করে নেয় এই জেলা। এদিনের এই বৃষ্টিতে স্বস্তির নিঃশ্বাস ফেলেছেন জেলাবাসী। আপাতত কয়েক দিন আবহাওয়া অনুকুলেই থাকবে বলে তারা আশাবাদী। {link} এই মারাত্মক তাপপ্রবাহ অবশেষে হ্রাস পাচ্ছে। তার সাথে স্বস্তি পাচ্ছে মানুষ ও জীবজন্তু। বৃষ্টির পরে আবহাওয়া সত্যিই শান্ত। আর্দ্রতাও কমে গেছে। এখন আর নিস্তেজ হয়ে পরবে না কেউ।   {ads} 

article thumbnail

বিনোদন

আরো পড়ুন

রাস পূর্ণিমা কী? জানুন বিস্তারিত-

শেফিল্ড টাইমস ডিজিটাল ডেস্ক: শ্রীকৃষ্ণ যখন ইহা  জগতে আবির্ভুত হয়েছিলেন, এরপর ভৌম বৃন্দাবনে দিব্যলীলা বিলাস করছিলেন, তখন শ্রীকৃষ্ণের বয়স যখন আট বছর।কৃষ্ণ শরৎপুর্ণিমার রাতে বৃন্দাবনের কুঞ্জে মধ্যরাতে তাঁর অপ্রাকৃত বংশীধ্বনি দ্বারা তাঁর প্রিয়  ভক্ত গোপীদের আহ্বান জানিয়েছিলেন।তখন সেই রাতে শ্রীকৃষ্ণের বংশীধ্বনি শোনবার পর, ব্রজগোপীরা গৃহ থেকে  বেরিয়ে পড়েন। তারা সকলে  কৃষ্ণের কাছে ছুঁটে গিয়েছিলেন। কেবল বৃন্দাবনের গোপীরাই নয়, ব্রহ্মান্ডের বিভিন্ন স্হান থেকে ভগবানের আরো সকলেই ছুটে গিয়েছিলেন। নিত্যসিদ্ধ এবং সাধনসিদ্ধ সকলকে তিনি সেদিন আহ্বান করেছিলেন।তখন শ্রীকৃষ্ণ আগত সকল   গোপীদের সাথে নিজেকে  বিস্তার করে সকলের সাথে নৃত্য করেছিলেন।বৃন্দাবনের এই  নৃত্যই রাসনৃত্য বলে সুপরিচিত। {link} রাস শব্দটি এসেছে 'রস'থেকে। রস হচ্ছে প্রকৃতপক্ষে মাধুর্য রস।মাধুর্যরসে কৃষ্ণ এই লীলা করেছিলেন বলে এর নাম রাসলীলা। এই লীলা ভগবানের সব থেকে উন্নত ও শ্রেষ্ঠ লীলা এবং চিন্ময় স্তরের সর্বোচ্চ উপলব্ধি। রাসলীলায় ছিলেন তিন শ্রেণির গোপী নিত্যসিদ্ধা,সাধনসিদ্ধা,ও কৃপাসিদ্ধা।নিত্যসিদ্ধা গোপীরা শ্রীকৃষ্ণের নিত্য পার্ষদ।তারা ইহা  জগতের বন্ধনে আবদ্ধ নয়। তারা  শুদ্ধ এবং শ্রীকৃষ্ণের সাথেই থাকেন। সাধনসিদ্ধা বলতে বোঝায় যারা সাধনা করে শুদ্ধ হয়েছেন, যেমন,,ত্রেতাযুগে ভগবান রামচন্দ্র যখন শ্রীমতি সীতাকে নিয়ে দন্ডকারণ্যের মধ্য দিয়ে হেঁটে যাচ্ছিলেন, ভগবান রামচন্দের সেই রুপ  দর্শন করবার পড়ে দন্ডকারণ্যের ঋষিরা যারা লক্ষ লক্ষ বছর ধরে ধ্যান করছিলেন,তাঁরা ভগবানকে পতিরুপে পেতে চেয়েছিলেন। ভগবান রামচন্দ্র  তখন তাঁদের বলেছিলেন,''আমি যখন দ্বাপরের শেষে কৃষ্ণরুপে লীলা করতে আসবো,, তখন তোমাদের সকল বাঞ্ছা পুর্ণ করব। তাই তাঁরাও রাসলীলাতে অংশগ্রহণ করেছিলেন। আরো ছিলেন দেবকন্যা,ঋষিকন্যা, গান্ধর্ব কন্যা, আরেক শ্রেণির গোপী ছিলেন , তারা  ততটা শুদ্ধ হয়ে ওঠেনি,তাদের গৃহে বন্দি করে রাখা হয়েছিল। {ads}

article thumbnail

Noble Prize: স্বীকৃতি মিলল ‘ফস মিনিমালিজমে’র, সাহিত্যে নোবেল পেলেন নরওয়ের জন ফস

Noble Prize: ‘না বলা কথাকে কণ্ঠ দিয়েছে তাঁর নাটক এবং অননুকরণীয় গদ্য।” তাই ২০২৩ সালে সাহিত্যে নোবেল পুরস্কার (Nobel Prize 2023) পেলেন সাহিত্যিক ও নাট্যকার জন ফস। সুইডেনের নোবেল অ্যাকাডেমি পুরস্কারের জন্য নাম ঘোষণা করেছে নরওয়ের এই বাসিন্দার। অ্যাকাডেমির তরফে জারি করা বিবৃতিতে বলা হয়েছে, “নরওয়ের ভাষা নিনর্স্কে লিখেছেন তিনি। নাটক, উপন্যাস, কবিতা, প্রবন্ধ, শিশু সাহিত্য, অনুবাদ সহ একাধিক জঁর নিয়ে লেখালেখি করেছেন তিনি। যে সব নাট্যকারের নাটক এখন পৃথিবীতে সব থেতে বেশি অভিনীত হয়, তাঁদের মধ্যে ফস একজন। তাঁর গদ্যও বহুল জনপ্রিয়।” সাহিত্যজগতে ফসের লিখন শৈলী ‘ফস মিনিমালিজম’ নামে খ্যাত।  {link} অক্টোবর মাস হল নোবেলের (Nobel Prize 2023) মাস। এর আগে চিকিৎসা বিজ্ঞান ও পদার্থবিদ্যায় নোবেল বিজয়ীদের নাম ঘোষণা করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার ঘোষণা করা হয় সাহিত্যে নোবেল প্রাপকের নাম। নোবেল পুরস্কারের প্যানেলভুক্তদের নাম সাধারণত গোপন রাখা হয়। ফসের নাম ঘোষণার পর জানা গিয়েছে ফসকে কঠিন লড়াই লড়তে হয়েছে চিনের লেখক ক্যান ঝিউ এবং কেনিয়ার লেখক নগুগি ওয়া থিয়ঙ্গওর সঙ্গে। প্রসঙ্গত, গত বছর সাহিত্যে নোবেল পুরস্কার পেয়েছিলেন ফরাসি লেখক অ্যানি আরনো।  ডিনামাইটের আবিষ্কারক তথা সুইডেনের ব্যবসায়ী আলফ্রেড নোবেলের উইল মেনে ১৯০১ সাল থেকে দেওয়া হচ্ছে নোবেল পুরস্কার (Nobel Prize 2023) প্রথম দিকে সাহিত্য, বিজ্ঞান ও শান্তির ক্ষেত্রে বিশেষ অবদানের জন্য দেওয়া হত এই পুরস্কার। পরে সুইডিশ সেন্ট্রাল ব্যাঙ্ক অর্থনীতির ক্ষেত্রেও পুরস্কার দিতে শুরু করে। ভারতীয় টাকায় পুরস্কার মূল্য ৮ কোটি টাকারও বেশি। নোবেল পুরস্কার নিয়ে অবশ্য বিতর্ক কম হয়নি। ২০১৬ সালে এই পুরস্কার দেওয়া হয়েছিল গায়ক-গীতিকার বব ডিলানকে। তা নিয়ে বিতর্ক হয়েছিল ব্যাপক।  {ads}

article thumbnail

স্পেনের লা-লিগার হাইভোল্টেজ এল ক্লাসিকোয় অরিজিৎ সিং এর গান, গর্বিত ভারতবাসী

নিজস্ব সংবাদদাতা: মহাদেশ পেরিয়ে সুদূর স্পেনের ফুটবল মাঠে শোনা গেল অরিজিৎ সিং এর গান। এমনিতেই অরিজিৎ সিং বিদেশে প্রচুর কনসার্ট করে থাকেন। প্রতিটি কনসার্ট উপচে পড়ে ভক্তদের ভিড়। তবে এবার অরিজিৎ সিং এর গান শোনা গেল বিদেশের ফুটবলের মাঠে। স্পেনীয় ফুটবল লিগ লা লিগায় ম্যাচের সময় মাঠেই শোনা যায় অরিজিৎ সিং এর কণ্ঠে বলিউডের গান। তাঁর কন্ঠে গানটি মুক্তি পাওয়ার পরে সেটি এখন রীতিমতো ভাইরাল। প্রসঙ্গত জানা গেছে এখনো পর্যন্ত ইউটিউবে ৮০ লক্ষের  বেশি ভিউ পেয়েছে ‘বৈরিয়া’ গানটি।  {link} বার্সেলোনার মাটিতে অরিজিৎ সিং এর গান শুনতে পেরে অরিজিৎ অনুরাগীরা বেজায় খুশি। উল্লেখ্য অরিজিৎ সিং এই বিষয়ে জানিয়েছেন যে তিনি এই খবরটি পেয়ে রীতিমতো আনন্দিত। তিনি এও বলেন যে তাঁর নতুন গান বার্সেলোনার ঘরের মাঠে জায়গা করে নিয়েছে, এতে তিনি কৃতজ্ঞ। এই গানের মাধ্যমে যেভাবে অসংখ্য মানুষকে আনন্দ দিতে পেরেছেন তিনি, তাতে তিনি নিজেও খুশি হয়েছেন। কিছুদিন আগে মহানগরীতে অরিজিৎ সিং এর কনসার্ট অনুষ্ঠিত হয়েছিল যেখানে প্রচুর মানুষ তাঁর গান শুনতে গিয়েছিলেন। উল্লেখ্য এপ্রিল মাসের দোরগোড়ায় উত্তরবঙ্গের শিলিগুড়ির কাঞ্চনজঙ্গা স্টেডিয়ামে অরিজিত সিং এর কনসার্ট আয়োজন করা হয়েছে। উত্তরবঙ্গে এবারে গান করতে আসবেন অরিজিৎ সিং। ইতিমধ্যেই অনলাইন এবং অফলাইন টিকিট বিক্রি শুরু হয়ে গিয়েছে। অরিজিৎ সিং এর অনুষ্ঠান নিয়ে শুধু শিলিগুড়ি নয়, গোটা উত্তরবঙ্গ উচ্ছ্বাসিত।  {ads}  

article thumbnail

অপরূপ সৌন্দর্যের সৌজন্য, পৃথিবীর বুকেই 'স্বর্গের বাগান' দার্জিলিং-এর মাংওয়া গ্রাম

নিজস্ব সংবাদদাতা: দার্জিলিংয় জেলার একটি দুর্দান্ত গ্রাম মাংওয়া। এই গ্রামের সুন্দর প্রাকৃতিক পরিবেশের জন্য গ্রামটির আরেক নাম স্বর্গের বাগান। এই গ্রামের বিশেষ আকর্ষণ কমলালেবুর বাগান। যে বা যারা একবার এই কমলালেবুর বাগান দেখবে একেবারে মন্ত্রমুগ্ধ হয়ে পড়বে। কমলালেবুর বাগান ছাড়াও রয়েছে চা বাগান, তুষার শুভ্র কাঞ্চনজঙ্ঘা, মনোরম প্রাকৃতিক পরিবেশ। এগুলি পর্যটকদের বিশেষ আকর্ষণীয়। যারা অ্যাডভেঞ্চার প্রেমী তাদের কাছে নিঃসন্দে দুর্দান্ত স্পট। এছাড়া যারা ফটো তুলতে ভালোবাসেন নিঃসন্দেহে তাদের কাছেও এই স্থানটি বিশেষ পছন্দ হবে। {link} চারিদিকের মন্ত্রমুগ্ধকর পরিবেশ রয়েছে বলে স্বর্গের বাগান বলা হয় গ্রামটিকে। নভেম্বরের শেষ থেকে ডিসেম্বর মাস পর্যন্ত সবথেকে আদর্শ সময়ে এই গ্রামে ভ্রমণ করবার। স্থানীয় বাসিন্দারাই হোমস্টে খুলেছেন, সেখানে আবার সকালের নাস্তা ফ্রি। হোমস্টে গুলি দুর্দান্ত, ২৪ ঘন্টা বিদ্যুৎ সরবরাহ, রুম হিটারের সুবিধা সহ একাধিক সুবিধা হয়েছে। স্বর্গের বাগান দেখতে হলে যেতেই হবে এই গ্রামে। শহরের কোলাহল থেকে বেশ কিছুদিনের জন্য মুক্তি পেতে অসাধারণ একটি ঘোরার জায়গা। যে সমস্ত পর্যটকরা একবার এখানে আসেন, তাদের আবার দ্বিতীয়বার আসবার ইচ্ছে হবেই। তাহলে ঠাণ্ডা থাকতে থাকতে এই বছরে একবার দেখে আসতেই পারেন মাংওয়া। গ্রামটি আপনার পর্যটক হৃদয়কে নিরাশ করবেনা একটুও।  {ads}

article thumbnail

আন্দুলে অভিনেত্রী অনুষ্কা শর্মা, চলছে ঝুলন গোস্বামীর বায়োপিক 'চাকদা এক্সপ্রেস'-এর শুটিং

নিজস্ব সংবাদদাতা, হাওড়া: বৃহস্পতিবার বেলা থেকে বলিউডের হিন্দি চলচ্চিত্রর শুটিং চলছে আন্দুল রাজবাড়ি মাঠে। বাংলার ক্রিকেটার ঝুলন গোস্বামীর বায়োপিক "চাকদা এক্সপ্রেস"-এর শ্যুটিংয়ে আন্দুল রাজমাঠে উপস্থিত বলিউডের অভিনেত্রী অনুষ্কা শর্মা। আন্দুল রাজমাঠ ও ইস্ট কেবিনে এই চলচ্চিত্রর শুটিং হয়। যা দেখতে রীতিমতো ভিড় উপচে পড়েছিল সাধারন মানুষের।  {link} বৃহস্পতিবার শ্যুটিং-এর কারনে স্থানীয় পুলিশ ও প্রশাসনের তরফ থেকে গোটা এলাকার চত্বরকে অভুতপূর্ব নিরাপত্তায় মুড়ে ফেলা হয়। তবে তাতে সাধারন মানুষের উৎসাহ এবং উদ্দীপনাতে এতটুকু ভাটা পড়েনি। বরং এই শুটিংকে কেন্দ্র করে এলাকাবাসীদের মধ্যে উৎসাহ ছিল যথেষ্ট চোখে পড়ার মত। আজ সকাল থেকে শুরুর কথা থাকলেও দেরিতেই শুরু হয় এই শুটিংয়ের কাজ। আর বেলা যত গড়ায় প্রচারের মাধ্যমে মানুষের ভিড়ও বাড়তে থাকে ততোই। {link} স্থানীয় বাসিন্দারা এই চলচ্চিত্রর নির্মাতাদেরকে ধন্যবাদ জানিয়েছেন। তাঁদের আশা এই চলচ্চিত্রর মাধ্যমে আন্দুলের নামও আরও প্রচারিত হবে। পাশাপাশি মাঠের ভিতরে জনসাধারণের প্রবেশ নিষিদ্ধ করেছে পুলিশ ও প্রশাসন। কাউকে বাইরে থেকে মোবাইলে ছবি তুলতে দেখলেও নিষেধ কর হচ্ছে। এছাড়াও আন্দুল রাজমাঠ একটি ঐতিহাসিক স্থান। এই চলচ্চিত্রর মাধ্যমে গোটা পৃথিবীর মানুষের কাছে সেই ইতিহাস প্রচারিত হোক এমনটাই আশা এলাকাবাসীদের। শুটিং চলার সময় অভিনেত্রীর নিরাপত্তার জন্য বিভিন্ন ধরণের অত্যাধুনিক নজরদারি প্রযুক্তির সাহায্য নেওয়া হয়েছে বলে স্থানীয় প্রশাসন সূত্রের খবর। বৃহস্পতিবারের সকালে কার্যত এক অন্য স্বাদের অভিজ্ঞতার স্বাদ মিলল বলেই মনে করছেন আন্দুলবাসী।  {ads}

article thumbnail

অতিরিক্ত অক্সিজেন ছাড়া এভারেস্টের শৃঙ্গজয়, পিয়ালির দুঃসাহসিক কাহিনী দেখাবে তথ্যচিত্র

নিজস্ব সংবাদদাতাঃ বাংলার মেয়ে পিয়ালীর দুঃসাহসিক পর্বতরোহনের কাহিনী এখন সবচেয়ে চর্চিত বিষয়। এভারেস্ট তো চড়েছেন অনেকেই। কিন্তু পিয়ালির ন্যায় অতিরিক্ত অক্সিজেন ছাড়া এভারেস্ট অভিযান বাংলার বুকে মাইলস্টোন। দুরন্ত সাহস ও হার না মানা মনোভাবের হাত ধরেই এই অসম্ভবকে সম্ভব করেছিল বঙ্গকন্যা। তার এই অদম্য লড়াইয়ের গল্প নিয়েই এবার তৈরি হতে চলেছে তথ্যচিত্র। পিয়ালির এভারেস্ট অভিযানের এই তথ্যচিত্রের নাম দেওয়া হয়েছে ‘ডাকছে’। {link} তথ্যচিত্রের নামকরণ এর সার্থকতা সম্বন্ধে পিয়ালী জানিয়েছে ছোটবেলা থেকেই প্রকৃতি তাকে ডাকত। ছোট থেকে পর্বত আরোহণের নেশায় বুঁদ ছিল পিয়ালী। নিয়মিত প্র্যাকটিস করা ছিল তার নেশা। ২০০৬ সালে টিউশনের টাকা বাঁচিয়ে নেপালে পাড়ি দেয় পিয়ালী। সেখানে গিয়ে গাইডের কাজ করতে শুরু করে সে, এছাড়াও নেপালে পাড়ি দেওয়ার পিছনে তার আরেকটি উদ্দেশ্য ছিল কিছু অভিজ্ঞতা সঞ্চয় করা।  এরপর সিংগলীলা অরণ্যে  পিয়ালী নিজের অভিজ্ঞতা সঞ্চয় করবার জন্য যাত্রা করেছিল। প্রচন্ড ঠান্ডার মধ্যে তার হাল বেহাল হয়ে গিয়েছিল, তার বাড়ির লোক দীর্ঘদিন তাঁর খোঁজ না পাওয়ায় থানায় ডায়েরি করে। এরপর বাধ্য হয়ে তাকে বাড়ি চলে যেতে হয়। কিন্তু পর্বতেরহনের আশা তার একেবারে কমেনি, অনেক ঘাত প্রতিঘাত পেরিয়ে নিজের স্বপ্ন সার্থক করেছে। অতিরিক্ত অক্সিজেন ছাড়াই পর্বতের শিখরে পৌঁছেছে পিয়ালি। বাংলার বুকে পিয়ালী নামটি একটী মাইলস্টোন। কারন বিশ্বের বুকে বাঙালিদের আবারও গর্বের আসনে উন্নীত করেছেন তিনি। তার এই তথ্যচিত্র দেখার জন্য যে এখন থেকেই মানুষ মুখিয়ে বসে রয়েছে, তা আর বলার অপেক্ষা রাখে না।   

article thumbnail